সন্ধ্যায় বের হলেন ঘাস কাটতে, সকালে মিললো লাশ

|

নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গ। ছবি: সংগৃহীত।

স্টাফ রিপোর্টার, নেত্রকোণা:

নেত্রকোণার বারহাট্টায় গরুর জন্য ঘাস কাটতে বের হয়ে লাশ হয়ে ফিরেছেন এক কৃষক বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে খাঁচা ও কাস্তে নিয়ে বের হন কৃষক সুলেমান মিয়া (৩৫)। রাত হয়ে গেলেও তিনি ফিরে না এলে পরিবারের লোকজন তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। শেষে শুক্রবার (৬ আগস্ট) ভোরে একটি পুকুর পাড়ে তার মরদেহ পাওয়া যায়।

বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের আলোকদিয়া-নামাপাড়া গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সুলেমান গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার গরুর জন্য ঘাস কাটতে বের হন। কিন্তু ফিরতে দেরি হওয়ায় পরিবারের লোকজন রাতে তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। পরে শুক্রবার ভোরে গ্রামের লুৎফুর রহমান নামে এক ব্যক্তির মাছের খামারের পুকুর পাড়ে তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। এ সময় সঙ্গে আনা খাঁচা ঘাসভর্তি ও কাস্তেটি পড়ে থাকতে দেখা যায়।

সিংধা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য উজ্বল মিয়া বলেন, লুৎফুরের ফিশারির সীমানায় জাল দিয়ে ঘেরাও করা। এই ঘেরাওয়ের খুঁটির সঙ্গে বিদ্যুতের লাইন টানানো আছে। ধারণা করা হচ্ছে বিদ্যুতের লাইনটি লিকেজ। কৃষক সুলেমান ঘাস কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎপৃষ্ট হতে পারেন।

এ ব্যাপারে বারহাট্টা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে ঘাস কাটতে গিয়ে কৃষক সুলেমান বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছেন। মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

/এস এন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply