শুধু গুরুতর অসুস্থ রোগীদেরই হাসপাতালে ভর্তি নেয়ার সিদ্ধান্ত জাপানের

|

গতকাল প্রেস ব্রিফিংয়ে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইউশিহিদে সুগা।

করোনা আক্রান্ত হলেই ভর্তি করা যাবে না হাসপাতালে, শুধু গুরুতর অসুস্থরাই পাবেন বেড- এমন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে জাপান। দেশটিতে নতুন করে করোনার সংক্রমণ বাড়ায়, হাসপাতালে রোগীর চাপ সামলাতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটি।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যেসব রোগীর কম উপসর্গ রয়েছে তারা বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নেবেন। এ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেশটির নাগরিকদের মাঝে।

টোকিওর একটি হাসপাতালগুলোয় প্রতি মুহুর্তে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এসব নতুন আক্রান্ত রোগীদের চাপে হিমশিম অবস্থা হাসপাতালগুলোর। কারণ ইতোমধ্যেই হাসপাতালে ভর্তি আছে ধারণ ক্ষমতার বেশি কোভিড রোগী। গত কয়েকদিন ধরে জাপানে বেড়েই চলেছে
কোভিড শনাক্তের সংখ্যা। প্রায় সাড়ে ১২ হাজার কোভিড আক্রান্ত রোগী নিজ বাসায় আইসোলেশনে থাকলেও, প্রতিদিন গড়ে সংক্রমিত হচ্ছেন দেশটির প্রায় ৭ হাজার মানুষ। ফলে চাপ বেড়েছে হাসপাতালগুলোতে। এমন পরিস্থিতিতে বিপাকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সাধারণ ওয়ার্ডের পাশাপাশি, চাপ বেড়েছে আইসিইউতেও। জায়গা না হওয়ায় অনেক হাসপাতালই ফিরিয়ে দিচ্ছে রোগীদের।

জাপানি চিকিৎসক হিরোনরি সাগারা বলেন, করোনা আক্রান্ত অনেক রোগী আছেন যারা হালকা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হয়েছেন। তারা ভর্তি থাকায়, গুরুতর রোগীরা জায়গা পাচ্ছেন না। ফলে অনেককেই ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শুধু গুরুতর রোগীদের হাসপাতালে ভর্তির নিয়ম নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। কম অসুস্থ বা হালকা অসুস্থদের নিজ বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইউশিহিদে সুগা।

সট:
জাপানের প্রধানমন্ত্রী মি. ইউশিহিদে সুগা বলেন, পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে, যারা অসুস্থ্য হচ্ছেন তাদের দ্রুত হাসাপাতালে ভর্তি করা প্রয়োজন। কিন্তু আক্রান্তের সংখ্যা বেশি হওয়ায়, চাপ বাড়ছে আইসিইউসহ সাধারণ ওয়ার্ডেও। নাগরিকদের নিরাপত্তা ও সেবায় যেটা প্রয়োজন আমি সেই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য। যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন এবং তুলনামুলক কম অসুস্থ্য তাদের বাড়িতেই থাকা উচিত। কারণ এই মুহুর্তে বেশি অসুস্থ্যদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়াটা জরুরী।

যদিও এই সিদ্ধান্ত নিয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে জাপান প্রশাসন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন চিকিৎসার ক্ষেত্রে কোনো বাছ বিচার রাখা উচিত নয়। সবারই চিকিৎসা পাওয়ার সমান অধিকার রয়েছে।

উল্লেখ্য যে, এখন পর্যন্ত জাপানে করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৫ হাজারের বেশি। যেভাবে সংক্রমণ বাড়ছে তাতে এই সংখ্যা সামনে আরও বাড়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা

/এসএইচ


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply