টাঙ্গাইলে টিকা নিয়েও সংশয়, পরীক্ষা করে আবার দেয়া হবে টিকা

|

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে টিকাকাণ্ডের পর শঙ্কিত রোববার যারা সেখানে ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন। ভ্যাকসিন শরীরে পুশ হলো কিনা-তা নিয়ে আছেন সংশয়ে।

সিরিঞ্জ পুশ করিয়েও ভ্যাকসিন না দেয়ার কাণ্ড যেদিন ঘটেছিল, সেদিন দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছিলেন দেলদুয়ারের দেওজান গ্রামের সিরাজুল ইসলাম। ঘটনা জানার পর থেকেই দুশ্চিন্তায় তিনি।

সিরাজুল ইসলাম জানান, আমি শঙ্কিত, কারণ সিরিঞ্জ পুশ করলেও ঔষধ দেয়া হয়েছে কি না তা বুঝতে পারছি না।

শঙ্কিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ২ নম্বর বুথে টিকা নেয়া অন্যরাও। সংশয়ে আছেন, ভ্যাকসিন শরীরে পুশ হলো, কি হলো না তা নিয়ে।

কয়েকজন টিকাগ্রহীতা জানান, ডাক্তারতো ইনজেকশন দিয়েছে, কিন্তু ঔষধসহ দিয়েছে কি না বুঝতে পারিনি। টিকার পর ব্যথাও হয়নি। তাই বুঝতে পারছি না। আরেকজন জানান, শুধু ইনজেকশন দিয়েছে বুঝেছি, টিকা দিয়েছে কি না বলা যাচ্ছে না। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ স্বজনরাও। তারা বলছেন, মহামারীকালে ভ্যাকসিন মহামূল্যবান। সেটা নিয়ে এমন কাণ্ড কাম্য নয়।

সিভিল সার্জন জানালেন, গেল রোববার ওই বুথে অন্তত ৮৯ জন টিকা নিয়েছেন। তাদের এন্টিবডি পরীক্ষার পর পুনরায় ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে।

টাঙ্গাইলের সিভিল সার্জন সাহাবুদ্দিন খান বলছেন, আমরা ওইদিনই অনেককে আবারও টিকা দিয়ে দিয়েছি। তবে যেহেতু অনলাইনে আপডেট হয়ে যায় তাই বলা যাচ্ছে না কে পেয়েছে কে পায়নি। তাই যাচাই বাছাই করেই যারা টিকা পায়নি তাদের আবারও টিকা দেয়া হবে।

এদিকে টিকা কাণ্ডের ঘটনায় সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিনকে এরইমধ্যে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে প্রতিবেদন ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply