ফরিদপুরে কুমির আতঙ্ক, ব্যর্থ উদ্ধার অভিযানের পর সতর্কতা জারি

|

কুমির আতঙ্কে দিন কাটছে ফরিদপুর সদরের সালাম খার ডাঙ্গী গ্রামবাসী।

যে জলাধারের পানি চাহিদা মেটায় নিত্যদিনের, সেখানে এখন সতর্কতা। কুমির আতঙ্কে দিন কাটছে ফরিদপুর সদরের সালাম খার ডাঙ্গী গ্রামবাসীর। বন্ধ গোসলসহ নিত্যদিনের কাজ।

উদ্ধার অভিযান ব্যর্থ হওয়ার পর সাময়িকভাবে সতর্কতা জারি করা হয়েছে জলাধারটির আশেপাশে। পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছে গ্রাম পুলিশ। তবে কুমিরটি উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে ছেড়ে দেয়ার কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

কুমিরটির কারণে বিপাকে পড়া এক ভুক্তভোগী জানান, গোসল করা, কাপড় ধোয়াসহ প্রয়োজনীয় কোনো কাজই করা যাচ্ছে না। বাচ্চারাও পানিতে নামতে পারছে না কুমিরটির কারণে।

এদিকে কুমিরের খবর এরইমধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে আশেপাশের এলাকায়। সেখান থেকে অনেকেই প্রতিদিন ভিড় করছে একনজর দেখার আশায়।

কুমিরটি দেখতে আসা এক দর্শনার্থী জানান, সবাই বলছে নদীতে কুমির উঠছে, তাই আজকে দেখতে আসলাম। অন্যদিকে, একজন দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করেও কুমির দেখতে না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে গিয়েছেন।

যদিও স্থানীয়দের আপাতত জলাধারের আশপাশে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। এলাকাবাসী-দর্শনার্থীদের নিরাপত্তায় মোতায়েন আছে গ্রাম পুলিশ।

নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তাকুজ্জামান জানান, জলাধারে ও স্থানীয় খেয়াঘাটে সতর্ক বার্তা দিয়ে দিয়েছে যেন মানুষ এইদিকে চলাচল না করে।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার জানান, কুমিরটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়ার জন্য ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আমরা যোগাযোগ করেছি। তারা এসেছিল এটিকে উদ্ধার করতে, তবে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যায়। কঠোর লকডাউন শেষ হলে তারা আবারও আসবে।

উল্লেখ্য, পদ্মা নদীর সাথে সংযুক্ত জলাধারটি স্থানীয়দের কাছে কুম নামে পরিচিত। ঈদের পর হঠাৎ সেখানে দেখা যায় একটি কুমির। দু’দিন অভিযান চালিয়েও ধরতে ব্যর্থ হয় বনবিভাগ আর প্রাণিসম্পদ সংরক্ষণ অধিদপ্তর। জাল ছিড়ে বেরিয়ে যায় কুমির। সতর্কতা জারি করে অভিযান সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকে দৈনন্দিন সব কাজ বন্ধ রেখেছেন এলাকাবাসী।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply