কঙ্গোতে জাতিগত সংঘর্ষে নিহত ৩৩

|

নতুন করে শুরু হওয়া জাতিগত সংঘর্ষে আফ্রিকার দেশ ডেমোক্রাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোতে ৩৩ ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। দেশটিতে গত ডিসেম্বরে এই ধরনের একটি সংঘর্ষে শতাধিক লোক নিহত হয়েছিল।

আন্তর্জাতিক গণ মাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, দেশটির উত্তর-পূর্ব ইতুরি রাজ্যে শুক্রবার হেমা ও লেন্দু জনগোষ্ঠীর মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।সেনাবাহিনীর স্থানীয় মুখপাত্র জুলেস এনগঙ্গো রয়টার্সকে জানান, সংঘর্ষে জড়িত দুই পক্ষকে অালাদা করে দিয়েছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী।

তিনি বলেন, “এটি দুই পক্ষের মধ্যে প্রতিশোধমূলক সংঘর্ষ। আমাদের জানা মতে, শিরচ্ছেদের ঘটনা এখানে নতুন কিছু নয়।”

বিগত দুই বছরে হেমা পশুপালনকারী গোষ্ঠী ও লেন্দু কৃষকদের বিভিন্ন সময়ে সংগঠিত সংঘর্ষে শুধু ইতুরি রাজ্য থেকেই লাখ লোক শরণার্থীতে পরিণত হয়েছে।

ইউনিসেফ জানিয়েছে, ৪৬ হাজারেরও অধিক শিশু উদ্বাস্তুর মতো এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াচ্ছে।নরওয়ের শরণার্থী বিষয়ক একটি এনজিও’র মতে, দেশটিতে ৪৫ লাখ মানুষের আশু মানবিক সাহায্য প্রয়োজন।

কঙ্গোতে ১৯৯৭ থেকে ২০০৩ সালের মধ্যে গোষ্ঠীগত যুদ্ধে বিভিন্ন দেশ জড়িয়ে পড়ায় একে কোনো কোনো পর্যবেক্ষক ‘আফ্রিকার বিশ্বযুদ্ধ’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। দেশটির বিপুল খনিজ সম্পদকে ঘিরে মূলত এই লড়াইয়ের সূত্রপাত। সরাসরি, অথবা রোগ ও অপুষ্টিতে ওই যুদ্ধে ৬০ লাখ লোক নিহত হয়েছে বলে দাবি করা হয়।

যমুনা অনলাইন: এফএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply