নিউইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু ক্যুমোর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

|

অন্তত ১১ জন সাবেক ও বর্তমান নারী সহকর্মীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে নিউইয়র্কের গভর্নর অ্যান্ড্রু ক্যুমোর বিরুদ্ধে। পাঁচ মাস তদন্তের পর এমন বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছেন রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল। তিনি বলেছেন, অযাচিত স্পর্শ ও চুম্বনের মাধ্যমে ক্যুমো আইন ভঙ্গ করেছেন। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হওয়ায় তার পদত্যাগের দাবিতে উত্তপ্ত মার্কিন রাজনৈতিক অঙ্গন। এমনকি ক্যুমোকে গভর্নর পদ ছাড়ার অনুরোধ জানিয়েছেন খোদ প্রেসিডেন্টও।

নিউ ইয়র্কের ইতিহাসে অন্যতম জনপ্রিয় গর্ভনর অ্যান্ড্রু ক্যুমো দীর্ঘ ১১ বছর ধরে রাজ্যটির শীর্ষ ব্যক্তি। গত ডিসেম্বরে হঠাৎ তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন সাবেক এক সহকর্মী। যার ভিত্তিতে শুরু হয় তদন্ত।

৫ মাসের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে ৬৩ বছর বয়সী রাজনীতিকের অন্ধকার এক অধ্যায়। গভর্নর কার্যালয়ের ১১ কর্মী তার বিরুদ্ধে হয়রানির শিকার হওয়ার অভিযোগ করেছেন।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) ১৬৫ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনে জানানো হয়, নারীদের জন্য গর্ভনর অফিস রীতিমতো বিভীষিকা। নিউইয়র্ক সিটির অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমস বলেন, গর্ভনর অ্যান্ড্রু ক্যুমো সাবেক ও বর্তমান নারী সহকর্মীদের বিভিন্ন হয়রানির মাধ্যমে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছিলেন। শরীরের স্পর্শকাতর অংশে হাত দিয়ে কিংবা ইঙ্গিতমূলক মন্তব্য করে তিনি নারী সহকর্মীদের উত্যক্ত করতেন। প্রায় দুশো জনের জবানবন্দি এবং ৭৪ হাজারের বেশি নথি বিশ্লেষণের মাধ্যমে তারা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন।

তবে আগে থেকেই হয়রানির অভিযোগ অস্বীকার করে আসা ক্যুমো প্রত্যাখ্যান করেছেন তদন্ত প্রতিবেদন। তিন কন্যার জনক এই গভর্নরের দাবি, সহানুভূতি-হৃদ্যতা থেকেই জড়িয়ে ধরা বা চুম্বন। নিজের দাবির পক্ষে অনেকগুলো ছবিও প্রকাশ করেছে তার কার্যালয়।

ক্যুমো বলেন, গণমাধ্যমের তথ্য আর বাস্তবের সাথে যোজন যোজন পার্থক্য। আমার জীবনের বেশিরভাগ সময়ই কাটিয়েছি রাজনীতি আর জনকল্যাণে। কাউকে অযাচিতভাবে কখনও স্পর্শ করিনি, গ্রহণ করিনি অন্যায় সুযোগও। এরপরও যৌন কেলেঙ্কারি ও হয়রানি দুর্ভাগ্যজনক। কেউ তার অজান্তে কষ্ট পেয়ে থাকলে তিনি তাদের কাছে দুঃখও প্রকাশ করেন।

গভর্নর যাই বলুক, তার বিদায়ের দাবিতে উত্তেজনা ছড়িয়েছে মার্কিন রাজনীতিতে। বিরোধীরা তো বটেই, ডেমোক্র্যাট নেতারাও বলছেন, দলে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন ক্যুমো। কোণঠাসা সতীর্থকে গভর্নরের পদ ছেড়ে দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল তার চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদনে, গর্ভনরের চারিত্রিক অসঙ্গতি খুঁজে পেয়েছেন। প্রমাণ হয়েছে তার বিরুদ্ধে যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগ। এ অবস্থায় দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর পরামর্শ দেবো ক্যুমোকে।

নারী অধিকার কর্মীরাও অবিলম্বে ক্যুমোর বিদায় দাবি করেছেন। অবশ্য যে তদন্ত হয়েছে তার ভিত্তিতে গভর্নরের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ নেই। পদত্যাগে রাজি না হলে অভিশংসনের রাস্তায় হাঁটতে হবে রাজ্যের নেতাদের।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply