পিনাক-৬ ডুবির ৭ বছর, আজও সন্ধান মেলেনি লঞ্চটির

|

পিনাক লঞ্চ ট্রাজেডির ৭ বছর আজ। সরকারি হিসেবে ২০১৪ সালে পদ্মায় লঞ্চ ডুবিতে ৪৯ মৃত্যু আর ৫৩ জন নিখোঁজ হয়। সাত বছরেও রায় হয়নি এ সংক্রান্ত দুটি মামলার।

আসামিরা আছেন জামিনে। নিখোঁজদের পরিবারের কাউকেই দেয়া হয়নি আর্থিক সহায়তা। উদ্ধারকৃত ৪৯ মরদেহের মধ্যে ২৮টি পরিবারকে বুঝিয়ে দেয়া হয় আর ২১ জন মাদারীপুরের শিবচরে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন হন। মৃত ওই ২১ জনের ডিএনএ টেস্টের ফলাফলও নেই। আজও সন্ধান মেলেনি তলিয়ে যাওয়া লঞ্চটির। এই দুর্ঘটনায় উপার্জনক্ষম সদস্যদের হারিয়ে অনেক অসহায় পরিবারকে কাটাতে হচ্ছে মানবেতর জীবন যাপন। অথচ তাদের দেয়া হয়নি কোন আর্থিক সহায়তা। এতে ক্ষোভের অন্ত নেই স্বজনহারা পরিবারগুলোর। দোষীদের বিচার না হওয়ায় নিহত ও নিখোঁজদের পরিবারে রয়েছে তীব্র ক্ষোভ।

ভুক্তভোগীরা জানান, সরকার যদি দ্রুত দোষীদের বিচার সম্পন্ন না করে তাহলে এমন দুর্ঘটনা ঘটতেই থাকবে। আমরা এ ঘটনার দ্রুত বিচার চাই। তাদের দাবি, শুরুর দিকে দ্রুত তদন্ত হলেও বর্তমানে তা অনেক মন্থর হয়ে গিয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে ঈদুল ফিতরের পর ৪ আগস্ট ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত আড়াই শতাধিক যাত্রী নিয়ে শিবচরের কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া পিনাক-৬ লঞ্চটি পদ্মার উত্তাল ঢেউয়ের কবলে পড়ে মাওয়ার অংশে ডুবে যায়।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply