ইসরায়েলি তেল ট্যাংকারে হামলা, ইরানকে কঠিন মূল্য দিতে হবে: যুক্তরাষ্ট্র

|

ওমান উপকূলে হামলার শিকার হয় ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণাধীন জাহাজ এমভি মার্সার স্ট্রিট।

আরব সাগরে ইসরায়েলি তেল ট্যাংকারে হামলার ঘটনায় ইরানকে কঠিন মূল্য দিতে হবে বলে হুমকি দিয়েছে তেলআবিবের প্রধান মিত্র যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটন জানিয়েছে, সম্মিলিতভাবেই তেহরানকে জবাব দেয়া হবে।

ওদিকে বেসামরিক জাহাজে হামলার ঘটনায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীও কড়া ভাষায় প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। এ ঘটনার জেরে একে অপরের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে যুক্তরাজ্য ও ইরান।

শুরু থেকেই আরব সাগরের ওমান উপকূলের কাছে ওই তেল ট্যাংকারে হামলার দায় অস্বীকার করে আসছে ইরান। তবে ওয়াশিংটনের দাবি, হামলায় ইরানের সম্পৃক্ততা নিয়ে যথেষ্ঠ তথ্য-প্রমাণ আছে তাদের হাতে।

তেহরানের কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি, মিত্রদের সাথে নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেবেন ইরানের বিরুদ্ধে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেন, পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখেছেন তারা এবং তারা নিশ্চিত হয়েছেন যে ইরানই হামলার জন্য দায়ী। তিনি বলেন, বিস্ফোরক ড্রোনের মাধ্যমে এ ধরনের হামলা তারা আগেও চালিয়েছে। এই নৃশংসতার পক্ষে কোনো ব্যাখ্যা চলে না। তারা নিশ্চিতভাবেই জাহাজ চলাচল ও বাণিজ্যের জন্য হুমকি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তবে আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বি ইসরায়েলের অভিযোগ, আন্তর্জাতিক সমুদ্রসীমায় একের পর এক আগ্রাসন চালাচ্ছে ইরান। ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গাটজ পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির চেষ্টা আর মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতা তৈরির দায়ও চাপান তেহরানের ওপর। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন আর সাধারণ নাবিক হত্যা ইরানের আগ্রাসী আচরণেরই নমুনা। পুরো বিশ্ব দেখছে ইরানের সহিংস আচরণ। নিরীহ জনগণ আর বৈশ্বিক অর্থনীতির জন্য হুমকি তারা। এই মুহূর্তেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

হামলায় ব্রিটিশ নাবিকের মৃত্যুতে ক্ষোভ ঝাড়েন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ইরানকে সহিংস হামলার পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি। বলেন, ইরানকে তার কৃতকর্মের ফল ভোগ করতে হবে।

গত বৃহস্পতিবার, ওমান উপকূলে হামলার শিকার হয় ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণাধীন জাহাজ এমভি মার্সার স্ট্রিট। এতে মৃত্যু হয় ব্রিটেন এবং রোমানিয়ার দুই নাবিকের। ধারণা করা হচ্ছে, ড্রোন ব্যবহার করে এ হামলা চালায় তেহরান। এর আগে অঞ্চলটিতে চোরাগোপ্তা হামলার শিকার হয়েছে ইরানি জাহাজও।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply