‘টিকা ছাড়া বের হওয়া যাবে না ঘর থেকে’

|

আগামী ১১ আগস্ট থেকে বিধিনিষেধ তুলে দেওয়ার ঘোষণা দেয়া হলেও ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে টিকা না নেয়া কোনো ব্যক্তি ঘরের বাইরে বের হতে পারবে না। কেউ বাহিরে বের হলে তাকে শাস্তির মুখে মুখোমুখি হতে হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও জানান, ‌সবাইকে ভ্যাকসিন নিতে হবে। দেশব্যাপী ১৪ হাজার কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১১ তারিখ থেকে আইন কঠোরভাবে প্রয়োগ করা হবে। তবে আইন না করলেও অধ্যাদেশ জারি করে হলেও শাস্তি দেওয়ার ক্ষমতা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী। তিনি জানান, যেহেতু সংসদ বন্ধ তাই আইন পাস করা সম্ভব নয়।

এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ৭ আগস্ট থেকে ৭ দিনের জন্য ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে টিকা দেওয়ার কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। মোট ১ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে। তিনি আরও জানান, মাস্ক পরিধান ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাই মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে পুলিশকে ক্ষমতা দেয়া হবে। যাতে করে তারা জরিমানা করতে পারে।

এর আগে বেলা সোয়া ১১টায় মন্ত্রিপরিষদের সভাকক্ষে সভাটি শুরু হয়। সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, মন্ত্রিপরিষদ সচিব আনোয়ারুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও ভার্চুয়ালি মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা যুক্ত ছিলেন। সভায় চলমান কঠোর লকডাউন আগামী ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে ১১ আগস্ট থেকে চলবে অল্প সংখ্যক গণপরিবহণ।

উল্লেখ্য, করোনার সংক্রমণরোধে সব ধরনের অফিস বন্ধ রেখে গত ১ থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকর করে সরকার। এরপর কোরবানির ঈদের আগে গত ১৫ জুলাই থেকে আট দিনের জন্য সব বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়। গত ২৩ জুলাই থেকে সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে সরকার। তবে এর মধ্যেই গত রবিবার (১ আগস্ট) থেকে খুলে দেয়া হয়েছে রফতানিমুখী শিল্প ও কলকারখানা।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply