পুলিশ কনস্টেবল ফরিদের ব্যতিক্রমী বিদায়

|

বিদায়ী মুহুর্তে কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

দীর্ঘ ৩৭ বছরের পুলিশ হিসেবে চাকরি জীবন শেষে অবসরে যাচ্ছেন কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিন। তার অবসরকে স্মরণীয় করে রাখতে ব্যতিক্রমী আয়োজন করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশ।

আজ সোমবার বেলা ১১টার দিকে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কর্মস্থল থেকে কনস্টেবল ফরিদকে বিদায় জানান সহকর্মীরা।

কুমিল্লা জেলার বাসিন্দা পুলিশ কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিন চাকরি জীবনের ৩৭বছর ২৩দিনের মাথায় পিআরএল-এ যাচ্ছেন। জীবনের দীর্ঘ সময় পুলিশ বাহিনীতে উৎসর্গ করে দিয়েছেন তিনি। তার এই দীর্ঘ পথ চলাকে স্মরনীয় রাখতে ব্যতিক্রমী আয়োজন করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশ। তাকে নতুন কাপড়ে বিদায় জানাতে উপহার দেয়া হয় পাঞ্জাবি-পাজামা ও টুপি। এছাড়া জায়নামাজ-তছবীহ এবং পরিবারের সকল সদস্যের জন্য পৃথক উপহার সামগ্রী দেয়া হয়।

কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিনকে চাকরি জীবন থেকে শেষ কর্মস্থল হতে বাড়িতে পৌছে দিতে ফুল দিয়ে সাজানো হয় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার ব্যবহৃত পুলিশ পিকআপটি। গাড়ির পাশাপাশি একটি সিএনজি চালিত অটো রিকশা ফুল ও বেলুন দিয়ে সাজানো হয় তাকে ঘর পর্যন্ত পৌঁছে দিতে।

বেলা ১১টার দিকে ওসির কক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নিয়ে বের হন পুলিশ কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিন। কনস্টেবল ফরিদকে সুসজ্জিত পিকআপটির সামনের আসনে বসিয়ে পেছনে আসনে বসেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)। তাদের সাথে গাড়িতে উঠে পরিদর্শক (তদন্ত) কাজি মাসুদ ইবনে আনোয়ার ও পরিদর্শক (অপারেশন) সোহরাব হোসাইন। সুসজ্জিত পিকআপটি সামনে ও পেছনে থাকে সাজানো সিএনজি চালিত অটো রিকশাটি ছুটে চলে। সদর মডেল থানা পুলিশ কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিনকে তার বাসা উজানিসার পর্যন্ত গিয়ে বিদায় দিয়ে আসেন।

নিজের অনুভূতি জানাতে কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিন বলেন, দীর্ঘদিন পুলিশে চাকরি জীবন সুখ-দুঃখের মাঝে কাটিয়েছি। আজ আমার চাকরির শেষ দিনে আমাকে যে সম্মান দেখানো হয়েছে তাতে সারাজীবনের দুঃখ ভুলে গেছি। কৃতজ্ঞতা জানাই ওসি স্যারসহ সকল পুলিশ সদস্যদের প্রতি।

এই বিষয়ে সদর মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম বলেন দীর্ঘ ৩৭বছর পুলিশ বাহিনীতে সফলতার সাথে কনস্টেবল ফরিদ উদ্দিন চাকুরী করেছেন। তার বিদায় লগ্ন স্মরণীয় করে রাখতে আমাদের এই আয়োজন ছিল। পাশাপাশি অন্যান্য পুলিশ সদস্যরাও তার এই আয়োজন দেখে অনুপ্রাণিত হবেন বলে আশা রাখি।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply