অনভিজ্ঞ অজি ব্যাটিং লাইনআপ, টনিক হবে স্পিন: ডমিঙ্গো

|

রাসেল ডমিঙ্গো। ফাইল ছবি

৫ ম্যাচের টি টোয়েন্টি সিরিজ শুরুর আগে বরাবরের মতো আবারও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজ জয়ের ভাবনার কথা জানালেন টাইগার কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। বলেন, অজিদের দলে বেশ কিছু সিনিয়র ক্রিকেটার নেই। যারা আছেন তাদের অনেকেরই বাংলাদেশে খেলার অভিজ্ঞতা নেই। সেই সাথে মন্থর উইকেটে সাকিব থাকছেন। এসব কারণেই অন্যবারের চেয়ে এবারের সিরিজ নিয়ে একটু অন্যরকম ভাবনা টাইগারদের এই প্রোটিয়া কোচের। প্রথম দিনের অনুশীলন শেষে রাসেল ডমিঙ্গো এসব কথা বলেন।

মিরপুরে যখন বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া মুখোমুখি, স্বাভাবিকভাবেই রণকৌশল তখন অনেকটাই ওপেন সিক্রেট। কারণটিও পরিষ্কার, লড়াই যে বাংলাদেশের স্পিনার বনাম অজি পেসারদের।

স্বাগতিক বাংলাদেশ চাইবে হোম কন্ডিশনের শতভাগ ফায়দা নিতে। তাই হয়তো অনুশীলনের প্রথম দিনেই শুরুতে নিজে এরপর দলপতি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে নিবিড়ভাবে উইকেট দেখে নিলেন হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

টাইগারদের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বলেন, দেখুন যেহেতু বৃষ্টি হচ্ছে তাই কার্টেল ওভারের ম্যাচ হতে পারে। উইকেটে ময়েশ্চারও থাকবে। সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ তাই পুরোপুরি স্পিন সহায়ক উইকেট হবে না হয়তো। তবে টানা খেলা, তাই শেষের দিকে বল টার্ন করতে পারে।

স্পিন দিয়ে অজিদের কুপোকাত কথা স্বাভাবিকভাবেই প্রকাশ্যে বলবেন না রাসেল ডমিঙ্গো। আর না বললেও অতীত ভেবে তিনি যে তাই করবেন সেটি সহজেই অনুমেয় অজিদেরও। হবেই না কেন? ২০১৭’র ঢাকা টেস্টে স্মিথ-ওয়ার্নারদের তো এই স্পিনেই বধ করেছিল টাইগাররা।

এদিকে অজিদের টপ অর্ডারে রয়েছে ডানহাতি ব্যাটারদের আধিক্য। ১৭ সদস্যের বাংলাদেশ স্কোয়াডে তাই সাকিব ও তাইজুল মতো দুই স্পেশালিস্ট স্পিনার। আছেন শেখ মেহেদী, মাহমুদুল্লাহ, আফিফ, শামীম আর মোসাদ্দেকের মতো স্পিনিং অলরাউন্ডারও।

রাসেল ডমিঙ্গো বলেন, অস্ট্রেলিয়ার টপ অর্ডারে বেশকিছু ডানহাতি ব্যাটসম্যান আছে। আর আমাদের আছে বিশ্বমানের বাঁহাতি স্পিনার। সেই সাথে অজিরাও অভিজ্ঞ বেশকিছু ক্রিকেটারকে পাচ্ছে না। বাংলাদেশ খেলার অভিজ্ঞতা ওদের অনেক ক্রিকেটারেরই নেই যা কাজে লাগাতে চাই আমরা। সাকিব খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন। বোলিংটা খুবই ভালো হচ্ছে তার। তবে ওপেনাররা কেউ ইনজুরিতে পড়লে সাকিব ও মিঠুনকে বিকল্প হিসেবে প্রস্তুত রাখছি।

বিশ্বসেরা অজি পেসারদের প্রসঙ্গে কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বলেন, স্টার্ক-হ্যাজলউড বিশ্বসেরা পেসার, কিন্তু তারাও তো মানুষ। তাই বাজে বল তারাও করবেই করবে। আর আমাদের ব্যাটসম্যানদের সেই সুযোগটা কাজে লাগাতে হবে। বলার বিবেচনায় নয় বলের মেরিট বুঝে খেলবো আমরা।

পরিসংখ্যান বলছে ফরম্যাটটি টি-টোয়েন্টি, তাই শেষ হাসি হাসার কাজ খানিকটা কঠিনই হবে বাংলাদেশের জন্য। ক্রিকেটের এই সংস্করণে এখনো নিজেদের ভালোভাবে মানিয়ে নিতে পারেনি মাহমুদুল্লাহর দল। যদিও অজিদের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি খেলার আগে এসব তকমা মানতে রাজি নন রাসেল ডমিঙ্গো।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply