রোহিঙ্গাদের হামলায় এপিবিএন’র ১২ সদস্য আহত

|

ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজারে রেশনকার্ড বিতরণকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গাদের সাথে সংঘর্ষে ১২ জন এবিপিএন’র সদস্য আহত হয়েছেন।

রোববার (১ আগস্ট) টেকনাফের নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পে নতুন এবং পুরাতন রোহিঙ্গাদের মধ্যে রেশনকার্ড বিতরণকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে।

ক্যাম্পে কর্মরত ১৬ এপিবিএন’র অধিনায়ক পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তরিকুল ইসলাম জানান, রোববার ভোর হতে নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পে ফুডকার্ড ইস্যুকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গা নারীরা ক্যাম্পের বিভিন্ন স্থানে জড়ো হতে থাকে। এ সময় এপিবিএন’র সদস্যরা উশৃঙ্খল রোহিঙ্গা নারীদের শান্ত করার চেষ্টা করে। রোহিঙ্গা নারীরা এতে শান্ত না হয়ে দফায় দফায় বিভিন্ন স্পটে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করে।

তিনি বলেন, তারা এক পর্যায়ে সংঘবদ্ধ হয়ে অতর্কিত পুলিশের ওপর ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে এবং পুলিশের অস্ত্র নিয়ে টানা হেঁচড়া শুরু করে। এ সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে রোহিঙ্গা নারীরা। পুলিশ জানমাল রক্ষায় ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ৫ রাউন্ড গুলি করে। এতে রোহিঙ্গা নারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়। ইট পাটকেলের আঘাতে এপিবিএন’র ১২ জন সদস্য আহত হয়েছেন।

এ ব্যাপারে এপিবিএন’র অধিনায়ক এসপি মো. তারিকুল ইসলাম তারিক জানান, উক্ত বিষয়ে আগামীকাল শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় (RRRC), জাতিসংঘ শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার (UNCHR) ও রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। বর্তমানে ক্যাম্পে স্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply