তুরস্কের দাবানল নেভাতে পানিবাহী বিমান পাঠিয়েছে ইরান

|

অগ্নিনির্বাপক বিমান। ছবি: সংগৃহীত

তুরস্কের দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলীয় বনভূমিতে ছড়িয়ে পড়া দাবানল নেভাতে দমকল বিমান পাঠিয়েছে ইরান ।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক টুইটাবার্তায় দমকল বিমানের ছবি প্রকাশ করেছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, তুরস্কের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় ‘অ্যাক্সাজ’ নৌঘাঁটিতে ইরানের একটি ইলিউশন-৭৬ বিমান অবতরণ করেছে।

তুর্কি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইরানের বিমানটি একসঙ্গে ৩০ টন পানি বহন করতে পারে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, আজারবাইজন, রাশিয়া, ইউক্রেন ও সর্বশেষ ইরান থেকে অগ্নিনির্বাপক বিমান এসে পৌঁছানোর ফলে দাবানল নেভানোর কাজ সহজ হয়েছে।

আঙ্কারায় নিযুক্ত ইরানি রাষ্ট্রদূত মোহাম্মাদ ফারাজমান্দ জানান, ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের কয়েকটি অগ্নিনির্বাপক হেলিকপ্টারও তুরস্কে পৌঁছেছে এবং সেগুলো রোববার থেকে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করবে।

তুরস্কের দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলীয় বনাঞ্চলে গত বুধবার থেকে অন্তত ১০০টি বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এসব আগুন এরই মধ্যে বিস্তীর্ণ জঙ্গলে ছড়িয়ে পড়েছে এবং দু’জন অগ্নিনির্বাপক কর্মীসহ ছয়জন নিহত হয়েছে।

এরই মধ্যে তুরস্কের দক্ষিণাঞ্চলীয় ১৭ প্রদেশের অন্তত ৭০ এলাকায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। পরিস্থিতির বেশি অবনতি হয়েছে পর্যটন নগরী মারমারিসের। সেখানকার বেশ কয়েকটি রিসোর্টে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় হুমকির মুখে পড়েছে পর্যটন ব্যবসা।

দেশি বিদেশি বহু পর্যটক ও স্থানীয় অধিবাসীদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। দেশি-বিদেশি অগ্নিনির্বাপক পাঁচটি বিমান, ৪৫টি হেলিকপ্টার এবং ড্রোনের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে যাচ্ছে এক হাজারেরও বেশি দমকলকর্মী।

সূত্র: তাসনিম নিউজ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply