জিয়া খানের মৃত্যুর মামলা কোনদিকে মোড় নিচ্ছে?

|

২০১৩ সালে গলায় ফাঁস দিয়ে মারা যান বলিউড অভিনেত্রী জিয়া খান।

বলিউড অভিনেত্রী জিয়া খানের মৃত্যুর মামলা মোড় নিয়েছে নতুন দিকে। গত আট বছর ধরে মামলাটি সেশন কোর্টের বিচারাধীন থাকার পর এবার সিবিআইর বিশেষ আদালতের ওপর ন্যাস্ত হয়েছে। জিয়া খানকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগ রয়েছে তার প্রেমিক বলিউড অভিনেতা সুরজ পাঞ্চলির বিরুদ্ধে।

২০১৩ সালের ৩ জুন, জুহুর ফ্ল্যাটে রাত ১১ টা থেকে ১১.৩০ টার মধ্যে গলায় ফাঁস দিয়ে মারা যান বলিউড অভিনেত্রী জিয়া খান। তার ময়নাতদন্ত রিপোর্ট থেকে সেসময় এমন তথ্যই উঠে এসেছিলো।

শুরুতে এই মামলার তদন্ত ভার ছিল মুম্বাই পুলিশের হাতে। কিন্তু মৃত্যুর একবছর পর ২০১৪ সালের জুলাই মাসে এই মৃত্যুর তদন্তভার যায় সিবিআইয়ের হাতে। পরে ২০১৯ সালে সেশন কোর্টে শুরু হয় মামলার বিচারকাজ। যদিও সেসময় খুব বেশি দূর এগোয়নি মামলাটি।

কিন্তু এবার সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের ওপর ন্যাস্ত হয়েছে মামলার বিচারভার। সেশন কোর্টের এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন, অভিনেতা সুরজ পাঞ্চলির আইনজীবী প্রশান্ত পাটিল। একই সঙ্গে মামলার বিচারকাজ শেষ হলে সুবিচার পাওয়ার আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

এদিকে, আদালতের এমন সিদ্ধান্তে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সুরজের মা অভিনেত্রী জারিনা ওয়াহাব। একই সঙ্গে সুরজ নির্দোষ প্রমাণিত হলে আদালত থেকে ক্লিনচিট দেওয়ার দাবিও জানিয়েছেন তিনি।

তবে জিয়া খান আত্মহত্যা করেছেন, একথা মানতে নারাজ অভিনেত্রীর মা রাবিয়া খান। ববাররের মতই তিনি দাবি করেছেন, চক্রান্ত করে খুন করা হয়েছে জিয়াকে।

মাত্র ২৫ বছর বয়সেই নিভে যায় অভিনেত্রী জিয়া খানের জীবন প্রদীপ। ২০০৭ সালে ‘নিঃশব্দ’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে অভিনয় শুরু করেছিলেন তিনি। এরপর ‘গজনি’, ‘চান্স পে ডান্স’, ‘হাউসফুল’ এর মতো বেশ কিছু জনপ্রিয় ছবিতে অভিনয় করেছিলেন তিনি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply