ভরা মৌসুমেও চট্টগ্রামের বাজারে নেই সাগরের মাছ

|

বৈরী আবহাওয়ায় মাছ আহরণ কমে যাওয়ায় চট্টগ্রামে চড়া মাছের দাম।

ভরা মৌসুমেও চট্টগ্রামের বাজারে নেই সাগরের মাছ। দীর্ঘ নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মাছ ধরা শুরু হলেও বৈরী আবহাওয়ায় মাছ আহরণ কমে গেছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। ফলে মাছের দামও বেশ চড়া। স্বস্তি নেই সবজির বাজারেও। প্রতি সবজিতেই বাড়তি দামের কারণে বাজারের হিসাব মেলাতে হিমশিম খাচ্ছেন নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা। মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে আবারও বেড়েছে চাল-চিনির দাম।

বাজার ঘুরে জানা গেছে, নিষেধাজ্ঞা কেটে গেলেও গেল কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি আর বৈরী আবহাওয়ায় সাগরে মাছ ধরা সম্ভব হচ্ছে না। জেলেরা সাগরে যেতে না পারায় সরবরাহ কম। ফলে, সব ধরনের সাগরের মাছের দাম বেড়েছে ২০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত। আর জো না থাকায় ইলিশ আহরণও কম।

মাছের বাজারের আসা এক ক্রেতা জানান, বাজারে যে পরিমাণ মাছ আছে তা স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম। দামও অনেক বেশি, সাধারণের সাধ্যের মধ্যে নেই।

তবে, প্রচুর সরবরাহ থাকলেও অস্থির সবজির বাজার। ক্রেতাদের দাবী, প্রায় প্রতিটি সবজির দাম স্বাভাবিকের চেয়ে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়ে গেছে। তবে বিক্রেতারা বলছেন, গেল সপ্তাহের তুলনায় দাম কমেছে।

বাজার আসা এক ক্রেতা জানান, করলা আগের সপ্তাহেও যেখানে ৪০ টাকা ছিল সেখানে এই সপ্তাহের এর দাম চাওয়া হচ্ছে ৬০ টাকা। অন্যদিকে বিক্রেতা জানান, বৃষ্টির জন্য অনেক সবজি নষ্ট হচ্ছে ফলে স্বাভাবিকের চেয়ে কম দামেই বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে।

বেড়েছে চালের দামও। প্রকারভেদে বস্তা প্রতি ১০০ থেকে ১৫০ টাকা বেড়েছে চালের দাম। তেলের দাম কিছুদিন আগে খানিক কমলেও এ সপ্তাহে তা আবারও বেড়েছে। কমেনি চিনির দাম।

লকডাউনে আয় রোজগার কমে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা। এ অবস্থায় বাজার স্বাভাবিক রাখতে নিয়মিত বাজার মনিটরিং এর দাবী জানান তারা।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply