ঝোঁপের ভেতর পাওয়া নবজাতকের নাম রাখা হল ‘স্বাধীন আহমেদ’

|

কামাল হোসাইন, নেত্রকোনা:

এই পৃথিবীতে তাকে কেউ চায়নি। খোদ তার জন্মদাতা মা-বাবাও না! তাইতো পৃথিবীর আলো দেখতে না দেখতেই তাকে ছুঁড়ে ফেলা হল। ফেলা হলো অনিরাপদ ঝোঁপের মধ্যে। হয়তো জন্মদাতারা চেয়েছিল- মরে যাক। কিন্তু ‘রাখে আল্লাহ মারে কে’।

ঝোঁপের ভেতর থেকে কান্না শোনে এগিয়ে যায় অচেনা মানুষ। অবশেষে পুলিশকে খবর দিয়ে নবজাতকটিকে উদ্ধার করেন তারা।

স্বাধীনতার মাস মার্চের প্রথম দিন আজ বৃহস্পতিবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার বানিয়াগাতী গ্রামে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুকতাদিরুল আহমেদ স্বাধীনতার মাসের কথা চিন্তা করে শিশুটির নাম রাখেন ‘স্বাধীন আহমেদ’।

পুলিশ জানিয়েছে, বানিয়াগাতী গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের স্ত্রী মিনা আক্তার ফজরের নামাজের জন্য অজু করতে বাড়ির পাশের টিউবওয়েলে গেলে শিশুটির কান্না শুনতে পান। পরে প্রতিবেশীদের ডেকে নিয়ে মিনা আক্তার রাস্তার পাশে ঝোঁপ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশে খবর দেন। তখনও নবজাতকের নাড়ি কাটা হয়নি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. আশরাফুজ্জামান জানান, শিশুটিকে জন্মের প্রায় এগারো ঘণ্টা পর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সে আশংকা মুক্ত। তবুও শিশুটির সার্বিক নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

কেন্দুয়া থানার ওসি মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, শিশুটি বর্তমানে উপজেলা সমাজসেবা অফিসের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পরবর্তীতে এ বিষয়ে আইন অনুযায়ী প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুকতাদিরুল আহমেদ বলেন, স্বাধীনতার মাসে পাওয়া অজ্ঞাতপরিচয় নবজাতকের নাম রেখেছি ‘স্বাধীন আহমেদ’। অভিভাবকের পরিচয় পাওয়া গেলে তাকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হবে। নতুবা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply