শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে আবারও ফেরি চলাচল শুরু

|

বৈরি আবহাওয়ার কারণে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল।

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি:

বৈরি আবহাওয়ার কারণে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে প্রায় ৩ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ রাখার পর আবারও সচল করা হয়েছে। বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়াঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহবুবুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) বেলা ৩টার দিকে নদীতে আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ায় এই নৌরুটে ফেরি সচল করে ঘাট কর্তৃপক্ষ। এর আগে, দুপুর ১২টার দিকে তীব্র স্রোত এবং প্রবল বাতাসে নদী উত্তাল হয়ে উঠলে দুর্ঘটনা এড়াতে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়াঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক মাহবুবুর রহমান জানান, বৈরি আবহাওয়ার কারণে নদীতে তীব্র স্রোত এবং প্রবল বাতাসে সকাল থেকে থেমে থেমে ফেরি চলাচল করছিল। দুপুরে নদী উত্তাল থাকায় দুর্ঘটনা এড়াতে দুপুর ১২টা থেকে তিনটা পর্যন্ত তিন ঘণ্টা ফেরি বন্ধ রাখার পর আবারও সচল করা হয়েছে। বর্তমানে এই নৌরুটে চারটি রো রো এবং তিনটি মিডিয়াম ফেরি মিলিয়ে মোট সাতটি ফেরি চলাচল করছে। ফেরি বন্ধের সময় শিমুলিয়াঘাটে এবং বাংলাবাজারে আটকে পড়া সাড়ে ছয় শতাধিক যানবাহনকে পর্যায়ক্রমে পারপার করা হবে।

এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার কঠোর বিধিনিষেধের সপ্তম দিনেও এই নৌরুটে সচল সাতটি ফেরিতে সকাল থেকে শতশত যাত্রী এবং ব্যাক্তিগত গাড়ি পারাপার হতে দেখা গেছে। প্রতিটি ফেরিতে ছিল ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ।

ঘাট অভিমুখে পুলিশের চেকপোস্ট এবং ঘাট এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হলেও যাত্রীদের নানা অজুহাতে ফেরিতে পারাপার হতে দেখা গেছে।

লৌহজং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ঘাটে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার হামিদ জানান, গাড়িতে সরকারি ভুয়া স্টিকার লাগিয়ে ঢাকা থেকে ঘাটে আসা বেশকয়েকটি গাড়ির মালিককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। যেসব গাড়ি নির্দেশনা উপেক্ষা করে চলাচল করছে তাদেরও জরিমানার আওতায় আনা হচ্ছে। যাত্রীদের চলাচল নিয়ন্ত্রণে ৪ জন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিভিন্ন পয়েন্টে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। যৌক্তিক কারণ দেখানো ছাড়া কাউকে ঘাটে কিংবা ঢাকার অভিমুখে যেতে দেয়া হচ্ছে না।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply