দেশে চালু হচ্ছে মানব টিস্যুর পূর্ণাঙ্গ ব্যাংক

|

দেশে চালু হচ্ছে টিস্যু ব্যাংক। ছবি: সংগৃহীত

দেশে চালু হচ্ছে মানব টিস্যুর পূর্ণাঙ্গ ব্যাংক। যার ব্যবহারে সারিয়ে তোলা যাবে শরীরের যে কোনো ক্ষত। এক্ষেত্রে বেশি সুবিধা পাবেন আগুনে পোড়া ও হাড়ভাঙা রোগীরা। এ জন্য ১৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

পরিকল্পনা কমিশন জানায়, এর সুবাদে পরিধি বাড়বে সাভারে ছোট আকারে চালু থাকা টিস্যু ব্যাংকের। এ সভায় সড়ক ও সেতু বিভাগের জন্য নতুন অনুশাসন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিশ্বে টিস্যু ব্যাংকের ধারণা খুব একটা নতুন না। মানবদেহের পরিত্যক্ত অংশ এখানে জীবানুমুক্ত করে সংরক্ষণ করা হয়। পরে তা কাজে আসে অন্য রোগীর টিস্যু ড্রাফটিং অপারেশনে। গত কয়েক বছরে দেশে টিস্যু বা কোষ প্রতিস্থাপন চিকিৎসার চাহিদা বেড়েছে। কিন্তু বেশিরভাগ হাসপাতাল ত্বক ও হাড়ের অংশ ফেলে দেয়ায় সবসময় পর্যাপ্ত মানব টিস্যু পাওয়া যায় না।

সেই সংকট মোকাবেলায় এবার সাভারে পরমাণু শক্তি কমিশনের টিস্যু ব্যাংকের পরিধি বাড়ানো হচ্ছে। টিস্যু সংরক্ষণের পাশাপাশি, পরমাণু প্রযুক্তিতে তৈরি থেরাপিউটিক মানব কল্যাণে ব্যবহার করার প্রকল্পের অ নুমোদন দিল একনেক সভা।

পরিকল্পনা কমিশনের আর্থ সামাজিক অবকাঠামো বিভাগের সদস্য সচিব নাসিমা বেগম বলেন, নিউক্লিয়ার টেকনলোজি দিয়ে স্টেরিলাইজড করে টিস্যুগুলোকে সংরক্ষণ করা হয় মাইনাস ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এভাবে হাড় ও টিস্যু ৫ বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করা সম্ভব।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply