শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ফেরি ঘাটে যাত্রীদের ঢল

|

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ফেরিতে যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ি পারাপার থামছে না।

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি:

কঠোর বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ফেরিতে যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ি পারাপার থামছে না। ১৪ দিনের বিধিনিষেধের আজ ষষ্ঠ দিন বুধবারও নৌ-রুটে সচল ৭টি ফেরিতে পারাপার হচ্ছে শতশত যাত্রী, ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেল।

শুধুমাত্র জরুরি ও লকডাউনের আওতামুক্ত গাড়ি পারাপারে ফেরি চালু থাকলেও একেবারে মানা হচ্ছে না নিয়ম। ফেরিতে যাত্রীদের চাপ ও জড়সড় অবস্থানে উধাও স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব। এতে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ঘাটের অভিমুখে পুলিশের চেকপোস্ট থাকলেও ঘাট এলাকায় সাধারণ যাত্রী ও যানবাহন পারাপার নিয়ন্ত্রণে কর্তৃপক্ষের থেকে তেমন কোনো উদ্যোগ দেখা যায়নি।

ঢাকামুখী যাত্রীরা সড়কে পুলিশের চেকপোস্ট এড়িয়ে ছোটযানবাহনে ভেঙে ভেঙে রওনা হচ্ছে। বিধি উপেক্ষা করে শিমুলিয়া থেকে ঢাকার রুটে ভাড়ায় চালিত মাইক্রোবাস চলাচল করতে দেখা গেছে। এসব যানবাহনে যাত্রীদের গুণতে হচ্ছে দুই থেকে তিনগুণ বেশি ভাড়া। এতে জরুরি প্রয়োজনে আসা যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে।

বিআইডাব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটে ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ফয়সাল হোসাইন জানান, নৌ-রুটে ৪টি রোরো, ৩টি মিডিয়াম মিলিয়ে ৭টি ফেরি সচল রয়েছে। প্রতিদিনই যাত্রীদের চাপ পড়ছে। আজও সকাল থেকে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ রয়েছে। তবে শুধুমাত্র জরুরি গাড়ি পারাপারেই ফেরি চালু রয়েছে। যাত্রীরা ঘাটে পৌঁছে ফেরিতে উঠে পড়ছে।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply