কুমিল্লায় বন্ধ ঘর থেকে ব্যবসায়ী ও কর্মচারীর মরদেহ উদ্ধার

|

ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলামের মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় এবং কর্মচারী ফয়েজ আহমেদের মরদেহ খাটের ওপর রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

কুমিল্লা ব্যুরো:

কুমিল্লায় লালমাই উপজেলার ইছাপুরা গ্রামের একটি বাড়ি থেকে ব্যবসায়ী ও তার কর্মচারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলামের মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় এবং কর্মচারী ফয়েজ আহমেদের মরদেহ খাটের ওপর রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) দুপুরে উপজেলার বেলঘর উত্তর ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামের মজুমদার বাড়ির একটি কক্ষ থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়। নিহত ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলাম ও কর্মচারি ফয়েজ আহমেদ একই গ্রামের বাসিন্দা। কীভাবে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে, এ ব্যাপারে পুলিম কোনো তথ্য পায়নি।

জানা যায়, শরীফুল ইসলাম গত কয়েক বছর ধরে বাড়ির সামনে মুদি দোকানের ব্যবসার পাশাপাশি একটি গরুর ফার্ম পরিচালনা করে আসছিলেন। ফার্ম ও দোকানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করতেন একই গ্রামের ফয়েজ আহমেদ। সম্প্রতি ঈদ উল আযহার সময় শরীফ প্রায় দশ লক্ষাধিক টাকার গরু বিক্রি করেছেন। সোমবার রাতে শরীফ দোকান বন্ধ করার পর কর্মচারী ফয়েজকে সাথে নিয়ে তার বাড়িতে নিজের কক্ষে ঘুমাতে যান। এসময় শরীফের বাবা-মা বাড়িতে ছিলেন না। মঙ্গলবার শরীফের বাবা-মা বাড়িতে এসে দেখেন ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। পরে দরজা ভেঙে ভেতরে গিয়ে দেখতে পান শরীফের মরদেহ ঘরের সিলিংয়ের সাথে ঝুলছে এবং কর্মচারি ফয়েজের মরদেহ খাটের উপর পড়ে রয়েছে।

খবর পেয়ে জেলা পুলিশ, পিবিআই ও সিআইডির ক্রাইম সিন ঘটনাস্থলে গিয়ে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে।

লালমাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আইয়ুব জানান, ঘটনাস্থল থেকে নিহত দুজনের মরদেহ উদ্ধারের পর সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত ফয়েজের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল। তবে কী কারণে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply