ভোলায় যৌতুকের দাবিতে অমানবিক নির্যাতন, মামলা না করতে প্রাণনাশের হুমকি

|

ছবি: সংগৃহীত

ভোলা প্রতিনিধি:

ভোলার চরফ্যাশনে যৌতুকের দাবিতে এক গৃহবধূর উপর অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি নির্যাতনের পর নির্যাতিতা গৃহবধূ যাতে থানায় মামলা না করেন সেজন্য তাকে রীতিমতো প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে নির্যাতনকারী।

চরফ্যাশন উপজেলার আসলামপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আয়শাবাগ গ্রামে গত রবিবার (২৫ জুলাই) বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। প্রায় দেড় বছর পূর্বে উপজেলার মাদ্রাজ ইউনিয়নের বাসিন্দা মোতালেব মাঝির মেয়ে আমেনা বেগম (২৪) ও আসলামপুর ইউনিয়নের তাহের সিকদারের ছেলে আবদুল মোতালেবের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়েতে যৌতুক হিসেবে নগদ এক লক্ষ টাকা ও প্রায় দেড় লক্ষ টাকার স্বর্ণালঙ্কারসহ অন্যান্য আসবাবপত্র দেন মেয়ের বাবা। বিয়ের পর থেকে স্বামী মোতালেব সিকদার স্ত্রী আমেনা বেগমকে দাবিকৃত যৌতুকের আরও দুই লক্ষ টাকার জন্য একাধিকবার মারধর করে বলে অভিযোগ করেন আহত আমেনা বেগম।

আমেনা বেগম বলেন, মারধরের পর স্থানীয়ভাবে একাধিক সালিশ হলেও সালিশের ফয়সালা অমান্য করে স্বামী মোতালেব। সম্প্রতি যৌতুকের দুই লক্ষ টাকার জন্য আমাকে ও আমার পিতাসহ ভাইদেরকে চাপ প্রয়োগ করে আমার স্বামী। আমার অসহায় ও অক্ষম বৃদ্ধ পিতা যৌতুকের ওই টাকা দিতে না পারায় গত রবিবার বিকেলে আমি জ্বরে অসুস্থ্য থাকা অবস্থায় লাঠিসোঁটা ও ঝাড়ু দিয়ে আমাকে মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে। লাঠি ও ঝাড়ুর গুরুতর একাধিক আঘাতের ফলে ওই গৃহবধূ অচেতন হয়ে যান বলেও দাবি করেন।

পরে ওই গৃহবধূর স্বজনরা খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান বলে স্থানীয়রা জানান। আমেনা বেগম আরও বলেন,আমাকে মারধর করেই খান্ত হয়নি মোতালেব ও তার স্বজনরা আমি যেন পুলিশের কাছে না যাই এজন্য আমি ও আমার বৃদ্ধ বাবাসহ পরিবারের অন্যান্যদেরকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।

তবে আবদুল মোতালেব ও তার পরিবার এ অভিযোগ অসত্য বলে দাবি করেছে। এ ঘটনায় চিকিৎসাধীন ওই গৃহবধূ বাদি হয়ে চরফ্যাশন থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি নিয়েছে বলে গোপন সূত্রে জানা গেছে।

চরফ্যাশন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনির হোসেন মিয়া বলেন, আমি ঘটনা শুনেছি অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

/এসএইচ





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply