বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে ফেরিতে আজও চলছে যাত্রী-যানবাহন পারাপার

|

বিপুল যাত্রীসমাগমে ফেরিতে উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দুরত্ব।

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি:

কঠোর বিধিনিষেধে ফেরিতে যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ি পারাপারে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটের ফেরিতে তা মানা হচ্ছে না। প্রতিফেরিতেই শতশত যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে পদ্মা পাড়ি দিতে দেখা যাচ্ছে।

আজ মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) চলমান বিধিনিষেধের পঞ্চমদিনেও এই নৌরুটের বাংলাবাজার ঘাট থেকে শতশত ঢাকামুখী যাত্রী আসছে শিমুলিয়াঘাটে, আবার শিমুলিয়া হয়ে বাংলাবাজার যাচ্ছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী যাত্রীরা। তবে ফেরিতে দক্ষিণবঙ্গগামী যাত্রীদের চাইতে ঢাকামুখী যাত্রীদের উপস্থিতি বেশি। আর বিপুল যাত্রীসমাগমে ফেরিতে উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দুরত্ব।

এদিকে লকডাউন বাস্তবায়নে এবং ফেরিতে যাত্রী চলাচল নিয়ন্ত্রণে ঘাটের প্রবেশমুখে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। তবে তা অতিক্রম করেতে যাত্রীরা নানা অজুহাত দেখাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। বাংলাবাজার থেকে শিমুলিয়াঘাটে আসা ঢাকামুখী যাত্রীরা গন্তব্যের উদ্দেশ্যে কিলোমিটারের পর কিলোমিটার পথ পারি দিচ্ছে পায়ে হেঁটে।

লৌহজং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ঘাটে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার হামিদ জানান, যাত্রীদের চলাচল নিয়ন্ত্রণে ৪ জন ম্যাজিস্টেটের নেতৃত্বে বিভিন্ন পয়েন্টে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। যৌক্তিক কারণ দেখানো ছাড়া কাউকে ঘাটে কিংবা ঢাকার অভিমুখে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। যৌক্তিক কারণ না দেখাতে পারলে তাদের জরিমানার আওতায় আনা হচ্ছে।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. ফয়সাল জানান, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে বর্তমানে ৬টি ফেরি সচল রয়েছে। জরুরি ও লকডাউনের আওতার বাইরে থাকা যানবাহন পারাপারে এসব ফেরি সচল রাখা হয়েছে। ঘাটে গাড়ির চাপ কম থাকায় কোনো গাড়িকে অপেক্ষা করতে হচ্ছে না।

/এস এন





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply