বৃষ্টির প্রত্যাশায় দিনাজপুরে ব্যাঙের বিয়ে

|

দিনাজপুরে বৃষ্টির প্রত্যাশায় দেয়া হলো ব্যাঙ বিয়ে।

দিনাজপুর প্রতিনিধি:

আদি কালের আদি কথা ‘বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি না হলে ব্যাঙের বিয়ে দিলে বৃষ্টি হয়’। তবে এটা সনাতন ধর্মালম্বীদের কাছে ধর্মীয় একটি আচার বলেও মনে করা হয়। এমন প্রচলন থেকেই দিনাজপুরে হয়ে গেল ব্যাঙের বিয়ে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শাস্ত্রবিধি মেনে মানুষের মতই সব আয়োজন ছিল এই বিয়েতে। তবে করোনার কারণে এবারে আয়োজন সংক্ষিপ্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। বিয়ে শেষে সবারই প্রার্থনা ছিল বৃষ্টির। পাশাপাশি করোনা মহামারী থেকে সকলকে মুক্ত রাখার।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শাস্ত্রবিধি মেনে সব আয়োজন, সিঁদুর দান ও পুরোহিতের মন্ত্র উচ্চারণের সাথে সাথে সাত পাকে বাঁধা পড়লো দুটি ব্যাঙ।
ভরা বর্ষা মৌসুমেও বৃষ্টি না হওয়ায় প্রচলিত লোক সংস্কৃতির এমন ব্যতিক্রমী আয়োজন হয়েছে দিনাজপুরের রাজবাটী হিরাবাগানে। স্থানীয়দের বিশ্বাস এমন বিয়ে দিলে বৃষ্টিপাত হয়। ব্যাঙের এই বিয়ে শেষে ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা ছিল বৃষ্টির, সেই সাথে প্রার্থনা করোনা মহামারী থেকে পৃথিবীর সকলকে মুক্ত রাখার।

এই বিয়েতে পুরোহিতের দায়িত্ব পালন করেছেন তপন কুমার গোস্বামী। তিনি বলেন, কথায় বলে- বিশ্বাসে মেলায় বস্তু, তর্কে বহুদুর। আর এমন বিশ্বাস থেকেই লোকচারের এমন আয়োজনগুলো চলে আসছে যুগ যুগ ধরে।

দিনাজপুর সরকারী কলেজের দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও গবেষক ড. মাসুদুল হক বলেন, এই প্রথম ব্যাঙ বিয়ে দেখার সৌভাগ্য হলো আমার। ছোটবেলায় পাঠ্যবইতে এই ধরনের লোকাচারের পড়া থাকলেও বাস্তবে এই ধরনের আয়োজন অনেকটাই কমে এসেছে। এমন
লোকাচারের চর্চা অব্যাহত রাখার দাবি এই গবেষকের।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply