পূর্ণিমার জোয়ারে ১০ গ্রাম প্লাবিত কুতুবদিয়ায়

|

দেড় মাস আগে ঘূর্ণিঝড়ে ঘরবাড়ি ভেঙে গেছে অনেকের, তার ওপর এখন আবার দুর্যোগ শুরু হওয়ায় আতঙ্কে রয়েছেন এলাকার মানুষ।

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

পূর্ণিমার জোয়ারে কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডের দশটি গ্রাম তলিয়ে গেছে।

২৪ জুলাই (শনিবার) দুপুরের জোয়ারের পানিতে এসব গ্রাম প্লাবিত হয়।

সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের প্রায় ৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙে যায়। ফলে সাইট পাড়া, কিরণ পাড়া, কাজীর পাড়া, নাছিয়ার পাড়া, তেলিয়া পাড়া, হাদার পাড়াসহ অন্তত ১০টি গ্রামের প্রায় ৫শ ঘরবাড়ি বিলিন হয়ে যায়, আশ্রয়হীন হয়ে পড়ে এসব এলাকায় বসবাসরত মানুষ। এর মধ্যে পূর্ণিমার জোয়ারের পানিতে আবারও প্লাবিত হয়ে তলিয়ে গেছে এসব এলাকার বসতবাড়ি, দোকানপাট ও চাষাবাদের জমি। এমনকি দ্বীপের বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্রটিও রয়েছে ঝুঁকিতে।

পূর্ণিমার জোয়ারের কুতুবদিয়ার দশটি গ্রাম তলিয়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, দেড় মাস আগে ঘূর্ণিঝড়ে ঘরবাড়ি ভেঙে গেছে অনেকের, তার ওপর এখন আবার দুর্যোগ শুরু হওয়ায় আতঙ্কে রয়েছেন তারা।

আলী আকবর ডেইল ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিকদার এই সমস্যার জন্য ঠিকাদারকেই দায়ী করেন। তিনি বলেন, নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও ঠিকাদার বেড়িবাঁধ মেরামত করেনি ঠিকাদার, তাই তিনটি ওয়ার্ড আবারও প্লাবিত হয়েছে।

কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে আশ্রয়কেন্দ্রে চলে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। বলেছেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক বরাবর জরুরি ত্রাণ সহায়তার চাহিদাপত্র দেওয়া হয়েছে।
এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জরুরি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আলি আকবর ডেইল ইউনিয়নের কাজির পাড়া গ্রামের ৬টি পরিবার টেকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে। তবে রাতের জোয়ারে আবার ঘরবাড়ি প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কায় উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন বাঁধভাঙা এলাকার মানুষ।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply