হাজার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত চীনের হেনান প্রদেশে

|

অতিবৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে প্রদেশটির অনেক এলাকা। ছবি: গ্লোবাল টাইমস।

হাজার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড হলো চীনের হেনান প্রদেশে। শুক্রবার (২৩ জুলাই) পর্যন্ত, ৬৬৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদফতর। চারদিন পরও, ভারি বর্ষণ কমার লক্ষণ নেই সেখানে। এই বৃষ্টিপাতে বন্যা ও জলাবদ্ধতার কবলে পড়েছে ২২টি শহর, আর পানির নিচে পুরোপুরি তলিয়ে গেছে ১২টি শহর।

অতিবৃষ্টিতে ভূমিধসে ভেঙে পড়ছে ভবন, চাপা পড়ছেন অনেক মানুষ। তাদের উদ্ধারে হিমশিম খেতে হচ্ছে উদ্ধারকর্মীদের। হতাহতের পাশাপাশি, নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে। কর্তৃপক্ষের শঙ্কা, হারিয়ে যাওয়া অনেকেরই নেই প্রাণে বাঁচার সম্ভাবনা।

এমন ভয়াবহ দুর্যোগ গেলো কয়েকশ বছরেও দেখেনি হেনানবাসী। প্রাদেশিক রাজধানী ঝেংজু প্রায় পুরোটাই পানির নিচে। চারদিন পার হলেও, থামছে না ভারি বর্ষণ। প্রকৃতির বিরূপ আচরণের সামনে অসহায় হেনানবাসী। বেচে থাকাটাই যখন মুখ্য, তখন কোনো রকমে ঘর ছেড়েছেন এসব মানুষ। নেই খাবার বা পানি। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন পুরো রাজধানী।

হেনানের এক অধিবাসী জানান, এক কাপড়ে ঘর থেকে বেরিয়ে এসেছি। ২ দিন ধরে খাবার নেই, পানি নেই। কখনো ট্রাকের ওপরে আবার কখনো বুলডোজারের ওপরে থাকছি। মনে হচ্ছে নরকে বসবাস করছি। রাতে ঘুমাতে পারি না। সব সময় মনে হয়, এই বুঝি ভূমিধসে ঘরবাড়ি সব ভেঙ্গে পড়লো।

বন্যায় তলিয়ে গেছে প্রদেশটির সিংহভাগ রাস্তা-রেলপথ। ফলে, অন্যান্য প্রদেশের সাথে যোগাযোগ কার্যত বন্ধ। দুর্বিষহ পরিস্থিতিতেও চলছে নিরলস উদ্ধার তৎপরতা। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দফতরের কর্মীদের পাশাপাশি যোগ দিয়েছে সেনা সদস্যরা। ব্যবহৃত হচ্ছে সর্বোচ্চ প্রযুক্তি।

চীনের উদ্ধারকারী দলের মুখ্য সমন্বয়কারী ওয়াং জিয়াংজুং বলেন, আমাদের প্রতিটি দলে চিকিৎসক, প্রকৌশলী, ফায়ার ফাইটার এবং ডুবুরি রয়েছেন। যেকোনো পরিস্থিতি সামলানোই আমাদের লক্ষ্য। সেভাবেই উদ্ধার অভিযান চলছে। তবে জলাবদ্ধ এলাকায়, ভবনধস সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে আমাদের জন্য। কারণে, সেখানে বড় ক্রেন কিংবা এক্সকেভেটর নেয়ার মতো কোনো সড়ক নেই।

এদিকে, খাদ্য এবং পানীয় সংকট মেটাতে, সক্রিয় হয়েছে চীনের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সামাজিক মাধ্যম এবং বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে চলছে সহযোগিতা।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply