ঝিনাইদহে অসহায়দের জন্য ৩০০ গরু কোরবানি দিলেন ২ বিদেশি নাগরিক

|

অসহায়দের জন্য ৩০০ গরু কোরবানি দিয়েছেন দুই বিদেশী নাগরিক।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:

বাংলাদেশীদের ভালোবাসার টানে এসেছেন তারা, এমন ভালোবাসা সচরাচর দেখা যায়না। ঈদুল আযহা উপলক্ষে সুদূর তুরস্ক থেকে তারা এসেছেন বাংলাদেশিদের ভালোবাসেন বলেই। তারা দুইজন দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করছেন পশু কুরবানি। একে একে ৩০০ গরু কুরবানি হচ্ছে। এ সত্যিই এক এলাহী ব্যাপার। জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে দলে দলে মানুষ আসছে কুরবানির মাংস নিতে।

অনেকে ভিড় করে দেখছেন এ বিদেশিদ্বয়কে। তুরস্কের এ দুই নাগরিকের নাম তাহসিন ইয়াজান ও ফাতিহ ইলমাদি। যারা এসেছেন তারা পাচ্ছেন দুই কেজি করে কুরবানির মাংস ও নগদ ১০০ টাকা। টাকাটা দেয়া হচ্ছে মানুষের আসা-যাওয়ার খরচ হিসেবে।

এমন ঘটনা সচরাচর দেখা যায় না। একের পর এক গরু কুরবানি হচ্ছে। স্বচক্ষে তদারক করছেন দুই তুর্কি। প্রতিটা কুরবানি যাতে আল্লাহর সন্তুষ্টি হয় সে জন্য তারা বলছেন আল্লাহু আকবার। কুরবানি করতে হুজুররা পরপর দাঁড়িয়ে রয়েছেন। একে একে সিরিয়াল চলে আসছে। কোন ধরনের জটিলতা বা জটলা হওয়ার কোন সুযোগই নেই। এমন দৃশ্য চোখে পড়বে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গিলেবাড়িয়ার কিংশুক ব্রিকসে।

মূলত জাহেদী ফাউন্ডেশনের তত্ত্বাবধানে ও তুরস্কের এ দুই বিদেশি নাগরিকের সহযোগিতায় চলছে দরিদ্র মানুষের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ।

জানা যায়, সমাজের যারা একবারেই দুস্থ ও অসহায় এবং ঈদের আনন্দ উদযাপন করতে পারে না তাদেরকে সহায়তা করাই এ ফাউন্ডেশন ও তুরস্কের দুই নাগরিকের মূল ব্রত। মোট ৩০০ গরু কুরবানি হবে দুই দিন। সেখানে ১৫ হাজার মানুষ পাবে ২ কেজি করে মাংস ও নগদ ১০০ করে টাকা।

তাহসিন ইয়াজান জানান, তিনি বাংলাদেশ ও এ দেশের মানুষ খুব ভালোবাসেন। মহামারিতে তারা মানুষের পাশে দাড়াতে চান। আর ফাতিহ ইলমাদি জানান, এ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তারা আগেও মাংস বিতরণ করেছেন এখানে। তার খুব ভালো লাগে এমন কাজের মধ্যে থাকতে।


সম্পর্কিত আরও পড়ুন





Leave a reply