নিখোঁজ সাংবাদিককে খুঁজে পাওয়ার নামে প্রতারণা

|

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

১২ দিন ধরে নিখোঁজ দেশ টিভির মানিকগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি এম ওবায়দুর রহমানের খোঁজ মেলার ভূয়া খবর দিয়ে তার পরিবারের সাথে প্রতারণা করেছে একটি চক্র। চক্রটি বিকাশের মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছে ১০ হাজার টাকা।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টার দিকে যশোর থেকে নিখোঁজ হন তিনি। ওবায়দুরের স্ত্রী সখিনা রানু জানান, দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার ঘিওর উপজেলা প্রতিনিধি শফি আলম তাকে দামুড়হুদার রেজাউল ইসলাম নামের এক সাংবাদিকের উদ্ধৃতি দিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় জানায় নিখোঁজ ওবায়দুর রহমানকে অচেতন অবস্থায় দামুড়হুদার একটি সড়ক থেকে উদ্ধার হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা নাজুক। স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রক্ত, অক্সিজেনসহ ঔষধ লাগবে।

এরপর তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে দামুড়হুদার ইত্তেফাক পত্রিকার কথিত সাংবাদিক রেজাউলের মোবাইল নম্বর ০১৭৯৪৮৮২৯৮৬ যোগাযোগ করা হলে তিনি ওবায়দুর রহমানকে উদ্ধারের কথা স্বীকার করে চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য ১০ হাজার টাকা চান। এরপর তার নম্বরে ১০ হাজার টাকা বিকাশ করার পর থেকেই নম্বরটি বন্ধ রয়েছে।

ইত্তেফাকের ঘিওর প্রতিনিধি শফি আলম জানান, রেজাউল নামের ওই ব্যক্তি নিজেকে দামুড়হুদা উপজেলার ইত্তেফাক প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে তাকে ফোন করেন। নিখোঁজ সাংবাদিক ওবায়দুর রহমানের উদ্ধারের বিষয়টি জানান তিনি। ইত্তেফাকের ডেস্ক থেকে শফির নাম্বার সংগ্রহ করে ফোন করেছেন বলে কথিত রেজাউল করিম জানান। পরে হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে পরিবারের সদস্যরা জানতে পারেন ওবায়দুরের উদ্ধার হওয়ার খবরটি ছিলো ভুয়া। তারা আসলে প্রতারিত হয়েছেন।

ওবায়দুর রহমান সাংবাদিকতার পাশাপাশি কমিউনিষ্ট পার্টির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তিনি বাংলাদেশ কৃষক সমিতির ঘিওর উপজেলা শাখার একজন নেতা। খুলনায় কৃষক সমিতির সম্মেলন শেষে ফেরার পথে যশোর থেকে নিখোঁজ হন তিনি।









Leave a reply