প্রতি দু’সপ্তাহে হারিয়ে যাচ্ছে একটি করে ভাষা

|

প্রায় ৭শ’ কোটি মানুষের পৃথিবীতে নিঃসঙ্গ জীবন কাটছে চার্লি মাংগুলদার। কারণ যে ভাষায় তিনি কথা বলেন, তা বোঝে এমন কেউই আর বেঁচে নেই। অস্ট্রেলিয়ার অ্যাবোরোজিনদের ‘আমারদাগ’ ভাষায় কথা বলা একমাত্র ব্যক্তি তিনি। মৃত্যুর সাথে সাথেই পৃথিবী থেকে হারিয়ে যাবে আরও একটি ভাষা।

ইউনেস্কোর হিসেবে, কথা বলার মানুষের অভাবে গড়ে প্রতি দুই সপ্তাহে বিলুপ্ত হচ্ছে একটি করে ভাষা। সংস্থাটির হিসেবে- বর্তমানে পৃথিবীতে ২০ জন মানুষ আছেন যাদের ভাষায় কথা বলতে পারেন না আর কেউ। তাদের মৃত্যুর পর কালের গর্ভে বিলীন হবে ২০টি ভাষা। ১০০ জনের কম মানুষ কথা বলেন- এমন ভাষার সংখ্যা ৫৩৪টি।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে, অস্তিত্বসংকটে থাকা ভাষাগুলোর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে ইউনেস্কো। বলা হচ্ছে, পৃথিবীতে এখন ৭ হাজারের মতো ভাষা আছে। এর মধ্যে নানা পর্যায়ের ঝুঁকিতে আছে ২,৪৬৪টি ভাষা। মারাত্মক বিপন্ন ৫৭৭টি।

যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়ন ও বিশ্বায়নের কারণে নতুন করে হুমকিতে পড়ছে অনেক ভাষা। একেকটি ভাষার মৃত্যুর সাথে সাথে হারিয়ে যাচ্ছে একেকটি সংস্কৃতি। ইউনেস্কোর পরিসংখ্যান বলছে, বিপন্ন ভাষার সংখ্যা তালিকায় সবার আগে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ভারত, অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশের নাম।

এর মধ্যে অস্তিত্বের ঝুঁকিতে থাকা সবচেয়ে বেশিসংখ্যক ভাষা আছে ভারতে। দেশটিতে ঝুঁকিতে থাকা ১৯৭টি কথ্য ভাষার মধ্যে ৪২টি ভাষাই বিলুপ্তির পথে। দেড়শ’ কোটি মানুষের দেশে ১০ হাজারেরও কম মানুষ কথা বলেন এসব ভাষায়।

ভাষার জন্য সংগ্রাম করা খোদ বাংলাদেশেই ঝুঁকিতে আছে বম, বিষ্ণুপ্রিয়সহ মোট ৫টি ভাষা। হাজারো বিলুপ্তপ্রায় ভাষা ও সংস্কৃতিকে টিকিয়ে রাখতে, এ বছর ভাষার বৈচিত্র্য রক্ষার ওপর জোর দিচ্ছে ইউনেস্কো। তাই ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্লোগান- ভাষার বৈচিত্র্য ও বহুভাষাবাদ রক্ষায় ঐক্য।









Leave a reply