অস্ট্রেলিয়ার দম্ভচূর্ণ

|

অধরাকে ধরে ফেললো বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট জয়ের স্বাদ পেলো টাইগাররা। মিরপুরে সাকিব আল হাসানের ‘অলরাউন্ড’ নৈপুণ্যে অজিদের ২০ রানে হারিয়েছে মুশফিক বাহিনী।

মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে ২ উইকেটে ১০৯ রান নিয়ে নতুন দিনের শুরু করে স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। আগের দিনের মতোই আক্রমণাত্মক খেলে ওয়ার্নার তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১৯তম সেঞ্চুরি। ১১২ রান করা এই ডেঞ্জারম্যানকে নিজের ২য় শিকারে পরিণত করেন সাকিব আল হাসান। অজিদের রান তখন ১৫৮। এরপর অধিনায়ক স্মিথকে ৩৭ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠান সাকিব।

সেট ও নির্ভরযোগ্য দুই ব্যাটসম্যানকে খুইয়ে দিশা হারিয়ে ফেলে অজি ইনিংস। হ্যান্ডসকম্ব, ওয়েডও ফিরে যান দ্রুতই। প্রথম ইনিংসে সফল অ্যাশটন অ্যাগারও ২ রানে ফিরে যান তাইজুলকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে। লাঞ্চ বিরতির পর শেষ স্বীকৃত ব্যাটসম্যান ম্যাক্সওয়েলকেও সাজঘরের পথ দেখান সাকিব। ১৯৯ রানে ৮ উইকেট হারানো অস্ট্রেলিয়ার পরাজয় তখন সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।  প্রথম ইনিংসের মতো এবারও নবম উইকেটে প্রতিরোধ গড়ে তোলে অজিরা। কামিন্স আর লায়ন মিলে যোগ করেন ২৯ রান।

তাইজুলকে সরিয়ে মিরাজকে বোলিংয়ে আনেন অধিনায়ক মুশফিক। ফলও মেলে হাতেনাতে। ফিরে যান লায়ন। পতন ঘটে নবম উইকেটের। এরপর কামিন্স আক্রমণাত্মক খেলে শুধু পরাজয়ের ব্যবধানটাই কমিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত হ্যাজলউড এলবিডব্লিউ’র ফাঁদে পড়লে ঐতিহাসিক জয়ের বন্দরে পৌছে যায় বাংলাদেশ।

ম্যাচে ১০ উইকেট শিকার ও প্রথম ইনিংসে সর্বোচ্চ ৮৪ রান করে ম্যাচ সেরা হয়েছে বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

টেস্টের আগেও বাংলাদেশের জয়ের প্রত্যয়কে ‘অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী’ কথা বলে অভিহিত করেছিলেন অজি অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। ব্যক্তিগত ৫০-তম টেস্টকে বিশেষ করে রাখতেই কিনা সাকিব-তামিমের অসাধারণ পারফরম্যান্সে ‘দম্ভচূর্ণ’ হলো অজি অধিনায়কের। ঢাকা টেস্টর ক্ষত শুকাতে নিশ্চয় লম্বা সময় লাগবে স্মিথদের।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply