দুঃসময় কাটছেই না সাকিব ও মোহামেডানের

|

ব্যাট হাতে ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে পারছেন না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। প্রিমিয়ার লিগে ৬ ম্যাচে নেই তার ৩০ ঊর্ধ্ব কোন ইনিংস। তার নেতৃত্বে থাকা মোহামেডান এবার ৯ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে লিজেন্ড অব রূপগঞ্জের কাছে। মিরপুর স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে মাহমুদুল জয়ের ৮৫ রানের চোখ ধাঁধানো ইনিংসের পরও মাত্র ১৩৬ রানে থামে ওল্ড ডিওএইচএস। জবাবে সৌম্য, মেহেদী, মুমিনুলদের দৃঢ়তায় ৬ উইকেটের জয় পায় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মতো ঘরোয়া আসরেও দ্যুতি ছড়াচ্ছে না সাকিব আল হাসানের ব্যাট। চলতি ডিপিএলে মোহামেডানের হয়ে সব শেষ ৬ ইনিংসে নাম্বার ওয়ানের ব্যাট থেকে এসেছে মোট ৭১ রান, গড় মাত্র ১১। সর্বোচ্চ ২৯।

রূপগঞ্জের বিপক্ষে খোলস ছাড়ার অপেক্ষায় ছিলেন সাকিব নিজেও। কিন্তু সোহাগ গাজীর ঘূর্ণিতে কিছুতেই সফল হতে পারছিলেন না। টানা ৪ বলে আসেনি কোন রান। পরের ওভারে শহীদের বলেও রান নেই। প্রেসার যাচ্ছিল বেড়ে। এরপর ইনিংসের ৬ষ্ঠ বলে থার্ডম্যানে পিনাকের তালুবন্দি হয়ে শূন্য রানে ক্রিজ ছাড়েন মোহামেডান অধিনায়ক।

সাকিবের বিদায়ের পর দেখতে দেখতেই ২৭ রানে ৬ উইকেট চলে যায় মোহামেডানের। তারপর ইনিংসকে কিছুটা ভদ্রস্থ চেহারা দেবার চেষ্টা করেন শুভাগত হোম। পাল্টা আক্রমণে খেলেন ৩২ বলে ৫ ছক্কায় ৫২ রানের ইনিংস। সাদা কালোরা পায় ১১৩ রানের পুঁজি। জবাবে পিনাক ঘোষের অপরাজিত ৫১ ও মেহেদী মারুফের ৪১ রানে ভর করে সহজেই ৯ উইকেটের বড় জয় পায় লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ। সেই সাথে টানা ৩ ম্যাচে হারের মুখ দেখলো মোহামেডান। আর হারের এমন রেকর্ড নিয়েই আগামী শুক্রবার দুপুরে তারা মুখোমুখি হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনীর।

দিনের প্রথম ম্যাচে শুরু থেকেই নিয়মিত উইকেট হারাতে থাকে ওল্ড ডিওএইচএস। তবে একপ্রান্ত আগলে রেখে দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেন মাহমুদুল হাসান জয়। ৭ ছক্কা, ৩ চারে ৫৫ বলে জয় খেলেন অপরাজিত ৮৫ রানের ইনিংস। ১৩৬ রানের পুঁজি পায় ওল্ড ডিওএইচএস।

জবাবে সৌম্য-মেহেদীতে ভালো সূচনা করে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। টানা তৃতীয় ফিফটির সুযোগ ছিল ইনফর্ম সৌম্য সরকারের। কিন্তু ৩৫ বলে ৩৭ রানে সাজঘরে ফিরতেই হাতছাড়া হয় সেই সুযোগ। তবে মুমিনুলের ২৭, রিয়াদের ১৯, ইয়াসিরের ২৪ রানে শেষমেশ ৬ উইকেটের জয় পায় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।









Leave a reply