১৫ লাখ মানুষের দ্বিতীয় ডোজ এখনও অনিশ্চিত

|

অনেক চেষ্টার পরেও ১৫ লাখ মানুষের জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজের টিকা জোগাড় করতে পারেনি সরকার। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বলা হচ্ছে, সেরামের সাথে চুক্তির টিকা কবে পাওয়া যাবে তা এখনও অনিশ্চিত।

শেষ চেষ্টা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ২০ লাখ ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন চেয়েছে বাংলাদেশ। তবে যুক্তরাষ্ট্র দিতে চায় ফাইজার আর মর্ডানার টিকা। অবশ্য চীন ও রাশিয়া থেকে টিকা পাওয়ার বিষয়টি শিগগিরই চূড়ান্ত হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

সেরামের সাথে চুক্তির তিন কোটি টিকার মধ্যে মাত্র ৭০ লাখ পাওয়া গেছে। সেই সাথে ভারত সরকার উপহার হিসেবে আরও ৩৩ লাখ টিকা দিয়েছিল। সব মিলিয়ে প্রায় ৫০ লাখ মানুষের জন্য অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা এসেছিল দেশে।

দ্বিতীয় ডোজ নিশ্চিত না করে ৫০ লাখের বেশি মানুষকে প্রথম ডোজ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ফলে প্রথম ডোজ পাওয়া প্রায় ১৫ লাখ মানুষ এখনও পায়নি দ্বিতীয়টি, কবে নাগাদ পাবে তাও অনিশ্চিত।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, ভারতের সাথে এ নিয়ে যোগাযোগ অব্যাহত রাখলেও কবে নাগাদ টিকা মিলবে তার কোনো সদুত্তর মেলেনি এখনও।

যুক্তরাষ্ট্রে উদ্বৃত্ত থাকা সাত লাখ ডোজের মত টিকা পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে সেগুলো ফাইজার বা মর্ডানার হওয়ার কথা থাকলেও ওয়াশিংটন চাইলে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনও দিতে পারে আর সেখানেই সম্ভাবনা দেখছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

পাশাপাশি চীন ও রাশিয়া থেকে টিকা কেনার প্রক্রিয়ায় জটিলতাগুলোও কেটে গেছে বলে দাবি করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

আগামী সপ্তাহে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে নিউইয়র্ক যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সেই সফরে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে বৈঠক আয়োজনেরও চেষ্টা চলছে তাদের।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply