কুড়িগ্রামে তিস্তার পানিতে ধসে গিয়েছে ক্রসবাঁধ

|

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলায় তিস্তা নদীর ভাঙনরোধে তৈরি করা ক্রসবাঁধটি ধসে গেছে। শনিবার (২৯ মে) তিস্তার প্রবল স্রোতে বাঁধটির ৩০ মিটার ধসে গিয়ে পানি ঢুকে পড়েছে লোকালয়ে।

ফলে বুড়িরহাট বাজারসহ ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের ১০টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার পরিবার, শতশত একর ফসলি জমি, মসজিদ-মন্দিরসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ডুবে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সম্প্রতি ক্রসবাঁধের সংস্কার কাজ শুরু করে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড। ইতোমধ্যে ক্রসবাঁধের সংস্কার কাজ শেষ হলেও তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় শনিবার রাতে হঠাৎ বাঁধটির ৩০ মিটার ধসে যায়।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড ধসে যাওয়া অংশে জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙন রোধ করার চেষ্টা করছে। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মাহমুদ হোসেন বলেন, ক্রসবাঁধের যে অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেখানে আমরা কাজ শুরু করেছি। আসন্ন বন্যায় এই বাঁধ কাজ করবে বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূরে তাসনিম বলেন, তিস্তা নদীর জন্য সরকারের মেগা প্রকল্প হাতে রয়েছে। এজন্য কোনো স্থায়ী প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে না। পানি উন্নয়ন বোর্ড অস্থায়ীভাবে জরুরিভিত্তিতে সংস্কার কাজ চালাচ্ছে।

আজ ৩০ মে তিস্তা নদীর পানি কাউনিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার ২৮.৫ মিটার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, তিস্তা নদীর ভাঙন রোধে ২০০০ সালে ক্রসবাঁধটি নির্মাণ করা হয়। এরপর থেকে ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নসহ ১০টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার পরিবারকে সুরক্ষা দিয়ে আসছে বাঁধটি। তবে প্রতি বছর বর্ষা এলেই বাঁধটির বিভিন্ন স্থান ধসে যায়।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply