সুশান্তের বন্ধু সিদ্ধার্থ পিঠানি গ্রেফতার

|

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর তদন্তে এবার নতুন মোড় নিয়েছে। প্রয়াত অভিনেতার বন্ধু সিদ্ধার্থ পিঠানিকে হায়দরাবাদ থেকে গ্রেফতার করেছে ভারতের নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

খবরে বলা হয়, শুরু থেকেই সিবিআই এবং এনসিবি’র কড়া নজরে ছিলেন সিদ্ধার্থ। একাধিকবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ডেকে পাঠায় দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলি। এবার সুশান্তের মৃত্যুবার্ষিকীর ঠিক আগেই তদন্তের নতুন দিক খুলে গেলো।

এনসিবি’র কর্মকর্তা সমীর ওয়াংখেড়ে জানিয়েছেন, খুব শীঘ্রই আদালতে তোলা হবে সিদ্ধার্থকে। মাদকযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়। অতীতেও তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠিয়েছিল এনসিবি এবং সিবিআই। একাধিকবার ঘণ্টার পর ঘণ্টা জেরা করা হয় তাকে। গত বছর এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের অভিনেতার মৃত্যু তদন্তে নামলে সামনে উঠে আসে মাদকযোগের সূত্র।

সুশান্তের সঙ্গে একই ফ্ল্যাটে থাকতেন সিদ্ধার্থ। অভিনেতার বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীরও ঘনিষ্ঠ বন্ধু হয়ে ওঠেন তিনি। সুশান্তের মৃত্যুর পর রিয়ার কল রেকর্ড থেকে দেখা গিয়েছিল ওই বছরে সিদ্ধার্থের সঙ্গে প্রায় ১০০ বার কথা হয়েছে তার। বন্ধুর মৃত্যুর পর তাকে নিয়ে তদন্তকারী সংস্থা এবং সংবাদমাধ্যমের কাছে একাধিকবার কথা বললেও এই প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান সিদ্ধার্থ।

গত অক্টোবর মাসে তদন্তের স্বার্থে সুশান্তের পরিচারক নীরজের সঙ্গে দিল্লি গিয়েছিলেন তিনি। জানা গিয়েছিল, ১৬৪ ধারা অনুযায়ী দু’জনের বয়ান রেকর্ড করবে সিবিআই। তবে সেই প্রথম নয়, তার আগেও সুশান্ত মৃত্যু কাণ্ডের এই দুই প্রত্যক্ষদর্শীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। দু’জনের বয়ানের অসংগতি থাকায় সেগুলো খতিয়ে দেখতে আবার ডেকে পাঠানো হয়েছিল তাদের। নীরজের বয়ান অনুযায়ী সিদ্ধার্থই প্রথম সুশান্তকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেছিলেন।

গত বছরের ১৪ জুন মুম্বাইয়ে বান্দ্রার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে সুশান্তের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। অভিনেতার মৃত্যুর পর রিয়া এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন সুশান্তের বাবা।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply