আমি সবার আগে একজন নার্সিং অফিসার তারপর অভিনেত্রী: শিখা মালহোত্রা

|

অভিনয় থেকে নার্সিং সেবা। করোনায় এমন বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হয়েছে বহু মানুষকে। তেমনই একজন বলিউড অভিনেত্রী শিখা মালহোত্রা। গেলো বছর, শুরুর দিকে ভারতে করোনার ভয়াবহতা দেখে অভিনয় ছেড়ে নেমে পড়েন করোনা রোগীর সেবায়। বার্তা সংস্থা এপির কাছে পরিবর্তনের সেই গল্প বলেছেন তারকা শিখা।

২০১৬ সালে অভিনয় করেছেন, বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের সাথে। এরপর বেশ কিছু সিনেমায় কাজ করেন তিনি। ২০২০ সালে মুক্তিপাওয়া কাঞ্চি সিনেমায়ও মূল চরিত্রে অভিনয় করেন ২৬ বছর বয়সী এই নায়িকা। করোনা মহামারির কারণে, বলিউডের ঝলমলে দুনিয়া ছেড়ে নেমে পড়েন মানব সেবায়। নার্সিং ডিগ্রিধারী শিখা মুম্বাইয়ের বিভিন্ন হাসপাতালে শুরু করেন স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম।

বলিউড অভিনেত্রী শিখা মালহোত্রা জানান,আমি সবার আগে একজন নার্সিং অফিসার তারপর অভিনেত্রী। এতো মৃত্যু, আবেগ, দুঃখ আমাকে বদলে দিয়েছে। হঠাৎ করেই আমি যেন আরও পরিণত, আরও দৃঢ় মানুষ হয়ে উঠেছি। মনে হয়েছে মানুষের জীবন রক্ষায় প্রতি সেকেন্ড কাজে লাগাতে হবে।

তবে দীর্ঘ এই পথটা মোটেও সহজ ছিলো না শিখার জন্য। রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে দীর্ঘ ৭ মাসের মাথায় নিজেই আক্রান্ত হন করোনায়। পরে এই ভাইরাস থেকে মুক্তি মিললেও স্ট্রোকের কারণে একপাশ অবশ হয়ে যায় তার। দীর্ঘ সময়ে সেই অসুস্থতা থেকে রেহাই পেয়েছেন শেষ পর্যন্ত।

শিখা বলেন নার্স, পুলিশ, চিকিৎসক সবাই করোনার মাঠে যুদ্ধে করছে। আমিও বসে থাকতে পারিনি। মনে হয়েছে আমার পেশায় দায়িত্ব বেড়েছে। কিন্তু পরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে একদম একা হয়ে গিয়েছিলাম। পুরোটা সময় পরিবারের সাথে দেখা করতে পারিনি। এর ওপর স্ট্রোক করি। তখন ভেবেছিলাম জীবন হয়তো এখানেই শেষ।

নতুন চলচ্চিত্রে প্রস্তাব আসতে শুরু করায়, ফের অভিনয় জগতে ডুব দেয়ার পরিকল্পনা করেছেন তিনি। তবে প্রয়োজনে আবারও নার্সিং সেবায় নামতে প্রস্তুত আছেন তিনি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply