বিচ্ছিন্ন সহিংসতায় শেষ হল ২৯ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ

|

আগের চার দফার মতো এবারও বিচ্ছিন্ন সহিংসতায় শেষ হল ২৯ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ। দুই পক্ষের সংঘর্ষে সৈয়দপুরে প্রাণও গেছে একজনের।

রাজশাহীর চারঘাটের থানাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে ককটেল বিস্ফোরণ হয়। এসময় চারদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। নেতাকর্মীদের ভিড় বাড়ায় ধীরে ধীর কমে যায় ভোটার উপস্থিতি।

সৈয়দপুরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা কলেজ কেন্দ্রে সংঘর্ষে জড়ায় কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম ও শেখ মোহনের কর্মী সমর্থকরা। সংঘর্ষের মাঝে পড়ে মারা যান নজরুলের কর্মী ছোটন অধিকারী।

দুপুরে হঠাৎ রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে জামালপুর পৌর এলাকা। ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সিংহজানি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে সংঘাতে জড়ায় দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা। চলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সংঘাতে জড়িয়েছে ২ কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা। সকালে ৮ নম্বর কাশিপুর ওয়ার্ডের একটি কেন্দ্রে ভোট দেয়া নিয়ে সংঘর্ষ বাধে। চলে দু’পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। পরে বিজিবি লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছে ৪ জন।

এছাড়া অন্যান্য জায়গায় বেশ শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট হয়। পুরুষ তো ছিলই, দীর্ঘলাইনে দাড়িয়ে ভোট দিয়েছেন নারী ভোটাররা। নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ছিল জোরদার। সবকেন্দ্রেই ভোট নেয়া হয় ইভিএমও।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply