সাবেক স্বামী রাকিবকে তালাক দিয়েই নাসিরকে বিয়ে করেছি: তামিমা

|

সাবেক স্বামী রাকিবকে তালাক দিয়েই ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে করেছি বলে মন্তব্য করেছেন তামিমা সুলতানা তাম্মি। বিয়ে এবং সন্তান থাকা ছাড়া বাকি সব অভিযোগ মিথ্যা বলে জানিয়েছেন ক্রিকেটার নাসির হোসেনের সদ্য বিবাহিত স্ত্রী তামিমা।

বুধবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটার নাসির বলেন, বিয়ে নিয়ে কেউ যেন মানহানিকর কথা না বলেন। আমরা যা করেছি আইনিভাবেও ও শরিয়াহ মোতাবেকই করেছি।

উল্লেখ্য, ব্যাভিচার ও মানহানির অভিযোগ এনে ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তার সদ্য বিবাহিত স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন তামিমার প্রথম স্বামী মো. রাকিব হাসান। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে তিনি এ মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও রাকিবের ৩ লাখ ১ টাকা দেনমোহরে বিয়ে ও রেজিস্ট্রি হয়। তাদের ৮ বছরের একটি মেয়েও রয়েছে (নাম প্রকাশ করা হলো না)। তামিমা পেশায় একজন কেবিন ক্রু। তিনি বর্তমানে সৌদি এয়ারলাইন্সে কর্মরত রয়েছেন। চাকরির সুবাদে তিনি বিগত ১০ মার্চ, ২০২০ তারিখে সৌদি আরব যান। করোনা মহামারির কারণে জরুরি অবস্থার সৃষ্টি হলে তিনি সেখানে আটকা পড়েন। এ সময়ে ফোন ও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বাদীর সাথে তার যোগাযোগ হতো।

চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিমা ও ক্রিকেটার নাসির হোসেনের বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা রাকিবের নজরে আসে। তিনি এতে হতবাক হয়ে যান। পরে পত্র-পত্রিকায় তিনি ঘটনার বিষয়ে সম্পূর্ণ জেনেছেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, রাকিবের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক চলমান অবস্থাতেই তামিমা নাসিরকে বিয়ে করেছেন; যা ধর্মীয় এবং রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী সম্পূর্ণ অবৈধ। নাসির প্রলোভন দেখিয়ে তার স্ত্রী তামিমার সাথে বিবাহের সম্পর্ক দেখিয়ে অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন যা ব্যাভিচারের শামিল।

মামলার এজাহারে আরও বলা হয়, তামিমা ও নাসিরের এমন অনৈতিক ও অবৈধ সম্পর্কের কারণে রাকিব ও তার ৮ বছর বয়সী শিশুকন্যা মারাত্মকভাবে মানসিক বিপর্যয়ে পড়েছেন। আসামিদের এ কার্যকলাপে রাকিবের চরমভাবে মানহানি হয়েছে; যা তার জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply