যুক্তরাষ্ট্রে আটক অনুপ্রবেশকারীদের কাছে ফিরতে পারবে ডিটেনশন সেন্টারে আলাদা থাকা সন্তানরা

|

যুক্তরাষ্ট্রে আটক অনুপ্রবেশকারীদের কাছে ফিরতে পারবে দীর্ঘদিন ডিটেনশন সেন্টারে আলাদা থাকা সন্তানরা। মঙ্গলবার, জো বাইডেনের সইকৃত ৩টি নির্বাহী আদেশের কারণেই সম্ভব হবে, বিষয়টি। মার্কিন প্রেসিডেন্টের দাবি, অভিবাসন প্রত্যাশীদের সুরক্ষা এবং সুযোগ সুবিধা নিশ্চিতে বহাল হলো, পুরানো আইন। তবে হোয়াইট হাউজ বলছে, করোনা’সহ নানা কারণে আদেশ কার্যকরে সময় প্রয়োজন।

ট্রাম্পের কঠোর অভিবাসন নীতির কারণে এতোদিন পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলো বিভিন্ন দেশের অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সন্তানেরা। এবার সেসব শিশুদেরকে বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার উদ্যোগ নিলেন নতুন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

মঙ্গলবার সই করেন অভিবাসন বিষয়ক তিনটি নির্বাহী আদেশে। বলেন, এই পদক্ষেপ যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন প্রত্যাশীদের সুরক্ষা, সুযোগ সুবিধা এবং দেশের শৃঙ্খলা নিশ্চিতে বড় ভূমিকা রাখবে।

জো বাইডেন বলেন, যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছি তা বাস্তবায়ন করবো। সীমান্ত সুরক্ষা এবং মুসলিম দেশ থেকে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়েছে। আমি নতুন কোন আইন করিনি, আগে যে আইনের চর্চা ছিলো সেটিই ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি। আজ থেকে দেশে সুষ্ঠু, শৃঙ্খল এবং মানবিক অভিবাসন আইন ব্যবস্থা নিশ্চিতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে, ৩টি নির্বাহী আদেশ।

ক্ষমতা গ্রহণের এক মাসের মধ্যে বাইডেনের এমন মানবিক উদ্যোগে খুশি মেক্সিকো সীমান্তে অপেক্ষারত অভিবাসনপ্রত্যাশীরা। প্রশাসনের সব ধরনের কার্যক্রমে সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে অভিবাসী বিষয়ক সংগঠনগুলো।

হিব্রু অভিবাসন সোসাইটির মুখপাত্র মেলানি নেজার বলেন, জানতাম এতো সহজ হবে না ট্রাম্পের নীতি ভেঙে ফেলা। কিন্তু আমাদের অধিকার রক্ষা এবং মানবিকতা বিবেচনায় এই পদক্ষেপটা খুবই জরুরি ছিলো। এই প্রশাসনের কার্যক্রমে আমাদের পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

তবে ট্রাম্পের নিয়োগ দেয়া হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জানান, এখনই কার্যকর হচ্ছে না এই আদেশ। মহামারির কারণে এটি বাস্তবায়ন সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।

হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেন, যেসব শরণার্থী এবং আবেদনকারী যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে চায় তাদের জন্য মানবিক বিষয়টি বিবেচনা করা হয়েছে। কিন্তু এই মুহূর্তটি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় নয়। আদেশ বাস্তবায়ন বেশ কিছুদিন প্রয়োজন। কংগ্রেসে বিলটি পাঠানোর পরই এর কার্যক্রম শুরু হবে।

রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী এবং মেক্সিকো সীমান্তে অপেক্ষারত অভিবাসীদের বিষয়ে শুনানির জন্য অভিবাসন আদালতের প্রতি নির্দেশও দেন বাইডেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply