রংপুরে গবাদি পশুর গায়ে চট জড়িয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা

|

শীত-কুয়াশায় আর শৈত্যপ্রবাহের কারণে রংপুর অঞ্চলের জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। বাতাসের আর্দ্রতা সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ কাছাকাছি হওয়ায় দিনের বেলাতেও কুয়াশার চাদরে মোড়ানো অবস্থায় উত্তরের জনপদ।

মানুষের পাশাপাশি গবাদিপশুরা পড়েছে বিপাকে। চট গায়ে জড়িয়ে তাদের শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন চাষীরা। আলু চাষীরা কুয়াশা আর শীতের দাপটের কারণে আলুর আবাদ নিয়ে তারা শঙ্কিত।

কৃষকদের দাবি, রাতের বেলা যদি সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচে এবং দিনের বেলা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে এবং দিনে কুয়াশা থাকলে তাহলে আলুতে পচনসহ নানা ধরনের রোগ হয়।

রংপুর আবহাওয়া অফিসের রেকর্ড অনুযায়ী গত এক সপ্তাহে রংপুর অঞ্চলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৩ ডিগ্রীর মধ্যে ওঠানামা করছে।









Leave a reply