বিতর্কিত ব্যক্তিকে সম্মাননা, অবশেষে সমাজসেবার উপ-পরিচালককে বদলি

|

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

বিতর্কিত ব্যক্তিকে সমাজসেবার সম্মাননা দেওয়ার ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মাসুদুল হাসান তাপসকে বদলি করা হয়েছে।

বুধবার সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে তাকে বরগুনা জেলায় উপ-পরিচালক বদলি কথা উল্লেখ করেছে।

ওএমএস কার্ডের তালিকায় স্ত্রী-সন্তান ও স্বজনদের নাম ওঠানোর ঘটনায় ডিলারশিপ বাতিল হওয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আ’লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. শাহ আলমকে সমাজসেবার সম্মাননা দেওয়া হয়। এই নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক মাসুদুল হাসান তাপস।

গত ২ জানুয়ারি সমাজসেবায় বিশেষ অবদানের জন্য ‘বিতর্কিত’ শাহ আলমকে সম্মাননা দেওয়া হয়। এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনা ব্যাপক শুরু হয়।

বিতর্কিত ব্যক্তিকে মনোনয়ন প্রক্রিয়া বিষয়ে জানতে চেয়ে গত ৩ জানুয়ারি উপ-পরিচালক মাসুদুল হাসান তাপসকে চিঠি দেন জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খান। পরবর্তীতে মাসুদুল হাসান তাপসের দেওয়া লিখিত ব্যাখ্যা সন্তোষজনক না হওয়ায় ‘বিতর্কিত’ শাহ আলমকে সম্মাননা প্রদানে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিবকে চিঠি দেন জেলা প্রশাসক।

ওই চিঠিতে শাহ আলমকে সম্মাননা প্রদানে দাপ্তরিক প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়নি বলে উল্লেখ করেন জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খান।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের দুর্যোগকালীন সময়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের গরিব-অসহায়দের জন্য সরকারের দেয়া ওএমএস কার্ডে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আ’লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শাহ আলমের স্ত্রী মোছাম্মৎ মমতাজ আলম ও মেয়ে আফরোজাসহ স্বজনদের নাম ওঠানো হয়। শাহ আলম নিজেই ওই ওয়ার্ডের ওএমএসের ডিলার ছিলেন। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে ব্যাপক
সমালোচনার মুখে গত বছরের ১৩মে শাহ আলমের ওএমএস ডিলারশিপ বাতিল করা হয়।









Leave a reply