শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

|

আজ ১৬ জানুয়ারি, বাংলা সাহিত্যের অন্যতম জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুবার্ষিকী। অপরাজেয় এ কথাসাহিত্যিক আজকের দিনে ১৯৩৮ খ্রিস্টাব্দের কলকাতার পার্ক নার্সিং হোমে মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুকালে লেখকের বয়স হয়েছিলো ৬১ বছর।

‘দেবদাস’ ও ‘শ্রীকান্ত’র সৃষ্টিকর্তা শরৎচন্দ্র ১৮৭৬ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর হুগলী জেলার দেবানন্দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মতিলাল চট্টোপাধ্যায় ও মাতা ভুবনমোহিনী দেবী। আর্থিক কষ্টে মতিলাল স্বপরিবারে ভাগলপুরে শ্বশুর বাড়িতে আশ্রয় নেন। সেখানে গিয়ে তেজনারায়ন জুবলি কলেজিয়েট স্কুল থেকে ১৮৯৪ সালে এনট্রান্স পাস করেন এ এফ. এ ক্লাসে ভর্তি হন। পরে ১৮৮৬ সালে বাধ্য হয়ে পড়াশোনা বাদ দিয়ে দেন।

শেষ জীবনে শরৎচন্দ্র প্রায়শই অসুস্থ থাকতেন। চিকিৎসার জন্য তাকে প্রথমে দক্ষিণ কলকাতার সাবার্বান হসপিটাল রোডের একটি ইউরোপীয় নার্সিং হোমে ও পরে ৪নং ভিক্টোরিয়া টেরাসে অবস্থিত পার্ক নার্সিং হোমে ভর্তি করা হয়। ১৯৩৮ সালের আজকের দিনে সকাল দশটায় শরৎচন্দ্র শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

তার জনপ্রিয় কয়েকটি উপন্যাস হচ্ছে বড়দিদি, রিবাজবৌ, পরিণীতা, পল্লীসমাজ, দেবদাস, পন্ডিতমশাই, শ্রীকান্ত, পথের দাবী, দত্তা, গৃহদাহ উল্লেখযোগ্য। উপন্যাসের পাশাপাশি নাটক, গল্প ও প্রবন্ধ রচনা করেছেন। বাংলা ভাষা বাদে তার লেখা বহু ভারতীয় ও বিদেশী ভাষায় অনূদিত হয়েছে।

তার সাহিত্য-কর্মকে ঘিরে ভারতীয় উপমহাদেশে এ পর্যন্ত প্রায় ৫০টি চলচ্চিত্র বিভিন্ন ভাষায় তৈরি হয়েছে। এরমধ্যে ‘দেবদাস’ উপন্যাসটি বাংলা, হিন্দি এবং তেলেগু ভাষায় আটটি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply