ফেনীতে প্রতিপক্ষের হামলায় ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতিসহ আহত ৭

|

ফেনী প্রতিনিধি:

ফেনীর লেমুয়ায় যুবলীগের কর্মীসভায় প্রতিপক্ষের হামলায় ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আজমীর খান সুমন ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ এবং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন রিয়াদসহ ৭ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার বিকেলে লেমুয়ার শেখ মুজিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয় পূর্ব নির্ধারিত যুবলীগের কর্মীসভা ছিল। স্থানীয় চেয়ারম্যান মোশারফ উদ্দিন নাসিম অনসারীর নেতৃত্বে তার প্রতিপক্ষ সাবেক চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান তালুকদার ও সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী দাউদুল ইসলাম গ্রুপের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এতে সাতজন আহত হয়েছেন।

আহত অন্যরা হচ্ছেন যুবলীগকর্মী আকবর হোসেন, মো. সাইদুল ইসলাম, মো হানিফ। আহতরা ফেনী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়াও অনেকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন।

এ বিষয়ে কামরুজ্জামান তালুকদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, করোনাকালীন স্থানীয় চেয়ারম্যান নাসিমের বিভিন্ন অপকর্মের প্রতিবাদ করলে সেই জেরে আজ অতর্কিতভাবে তার কর্মীদের ওপর হামলা করেছে। এছাড়াও আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রতিপক্ষ ভেবে এ হামলা করেছে।

দাউদুল ইসলাম বলেন, আগামী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী ভেবে আমার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করেছে। এতে অন্তত ১০/১২ জন আহত হয়েছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান মোশারফ উদ্দিন নাসিমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি পুরো বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। কে বা কারা হামলা করেছে তার জানা নেই।

ফেনী সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. আব্দুল আজিজ বলেন, আহতদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে এবং তাদের মাথায় আঘাত রয়েছে।

ফেনী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ওই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সুশান চন্দ্র শীল জানান, লেমুয়ায় আওয়ামী লীগ এবং যুবলীগের মধ্যে সেখানে মনস্তাত্ত্বিক সমস্যা চলছে দীর্ঘদিন ধরে। সে জেরে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। যারা এই হামলার সাথে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বোগদাদিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ওসমান গনি জানান, লেমুয়ায় হামলার ঘটনা শুনেছি। তবে কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আমরা ব্যবস্থা নিবো।

ইউএইচ/









Leave a reply