তবে কী অর্থের লোভে বিক্রি হয়ে গেলেন সৌরভ গাঙ্গুলী?

|

মাত্র ৩৬ রানে অলআউট হয়ে অস্ট্রেলিয়ায় লজ্জায় ডুবেছে ভারতীয় ব্যাটিং। আর ঘরের মাঠে নাকি লজ্জায় পড়তে যাচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলী। ভারতীয় বোর্ডের সভাপতি হিসেবে একের পর এক “দাদাগিরি” আর স্বার্থের সংঘাতে জড়িয়েছেন তিনি। এই অভিযোগে টালমাটাল সৌরভের গদি। বৃহস্পতিবার বোর্ডের বার্ষিক সাধারণ সভা-এজিএমে তোপের মুখে পড়তে যাচ্ছেন প্রিন্স অফ কোলকাতা।

তিনি দাদা। কলকাতার দাদা। প্রিন্স অফ ক্যালকাটা। এমন সব পদবি কিন্তু একদিনে আসেনি। ভঙ্গুর ভারতীয় টিমকে কাঁধে তুলেছিলেন! হারতে থাকা দল জিততে শিখিয়েছিলেন। কলকাতার ছেলেটা তাই প্রতাপ দেখিয়েছেন পুরো ভারতে। হার না জানা মানুষটা জার্সিটা তুলে রেখেও থামেননি।

বসেছেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের মসনদে। গেল বছর দায়িত্ব নেন ক্ষমতাধর বিসিসিআইয়ের সভাপতি হিসেবে। কিন্তু মাঠে প্রতাপ দেখানে গাঙ্গুলী এবার বাউন্সারের সামনে। অ্যাডিলেডে হ্যাজলউড-প্যাট কামিন্সে নাস্তানাবুদ হয়েছে ভারতীয় ব্যাটিং-৩৬ রানে গুটিয়ে গেছে ভারতের দম্ভ! বৃহস্পতির বিসিসি সিআইয়ের বার্ষিক সভাতেও এমন বাউন্সারে কতক্ষণ টিকতে পারেন সেটাই দেখার অপেক্ষা।

টাকার পেছনে ছুটেছেন-এমন সমালোচনায় আগুনে পুড়ে খান খান সৌরভ গাঙ্গুলী। বোর্ডের স্বার্থের বিরোধী বিভিন্ন বিজ্ঞাপন করেছেন। আইপিএলের টাইটেল স্পন্সর ছিলো ড্রিম ১১ আর সৌরভ বিজ্ঞাপন করেছেন অন্য একটি অনলাইনের। তেমনি টিম জার্সি স্পন্সর বাইজুসও নাকি ক্ষিপ্ত।

বোর্ড সভাপতি কী পারেন এভাবে আয় করতে? এই ইস্যুতেই নাকি একাট্টা পরিচালকরা। ৯ মাসের মেয়াদ শেষ হয়েছে জুনেই, ভাগ্য ঝুলে আছে আদালতে। কিন্তু থার্ড আম্পায়ারের সেই কলের আগেই ক্লিন বোল্ড কি হচ্ছেন দাদা? তবে এবার কী ভাগ্যই খেলবে সৌরভকে নিয়ে?









Leave a reply