শেখ রাজিয়া নাসের চির নিদ্রায় শায়িত হলেন বনানী কবরস্থানে

|

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ভাই শেখ আবু নাসেরের স্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাচি শেখ রাজিয়া নাসেরের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বাদ জোহর জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে তার লাশ দাফন সম্পন্ন হয়।

মঙ্গলবার বাদ জোহর বনানী কবরস্থানে জানাজা শেষে সেখানেই রাজিয়া নাসেরকে দাফন করা হয়। তিনি সোমবার রাত ৮টা ৫০মিনিটে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান (ইন্না লিল্লাহি …. রাজিউন)। গত ৩ নভেম্বর থেকে তিনি ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাসায় বিপথগামী কিছু সেনা সদস্যের নারকীয় হামলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের বাকি সদস্যের ̈সাথে নিহত হন শেখ আবু নাসের।

১৯৭১ সালে পাক আর্মি শেখ আবু নাসের এর টুঙ্গীপাড়ার বাড়ি পুড়িয়ে দেয়। পরে সন্তানদের নিয়ে ঢেঁকিঘরে আশ্রয় নেন শেখ রাজিয়া নাসের। রাজাকাররা জানতে পারে যে, শেখ নাসের এর পরিবার ঢেঁকিঘরে আশ্রয় নিয়েছে। সেখানে গিয়ে তারা সেটিও পুড়ে দেয়। পুড়িয়ে দেওয়ার সময় শেখ রাজিয়া নাসের তার সন্তান শেখ রুবেলকে ফিডারে দুধ খাওয়াচ্ছিলেন। ফিডারটি কেড়ে নিয়ে রাজাকাররা ভেঙ্গে ফেলে এবং ঘরটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। তখন কোনো রকম সন্তানদেরকে নিয়ে জীবন বাঁচান।

১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি নির্বাচিত হয়ে শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর তার চাচি রাজিয়া নাসের তাকে মাতৃস্নেহে আগলে রাখেন। তিনি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর অভিভাবক।

মরহুমার পাঁচ ছেলের মধ্যে বড় ছেলে শেখ হেলাল উদ্দিন বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য। আরেক ছেলে শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য। তার নাতি ও শেখ হেলালের ছেলে শেখ শারহান নাসের তন্ময় বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য।

ইউএইচ/





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply