কিস্তির চাপ সইতে না পেরে সপরিবারে বিষ পান, স্ত্রীর মৃত্যু

|

এনজিও থেকে নেয়া ঋণের কিস্তির চাপ সইতে না পেরে বগুড়ায় স্ত্রী ও শিশুকন্যাসহ বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন মহিদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় মহিদুল ও শিশুকন্যা বেঁচে গেলেও মারা গেছেন মহিদুলের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বুলবুলি।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, শহরের নওদাপাড়া এলাকার বাসিন্দা মহিদুল একজন লেদ শ্রমিক ছিলেন। বেশ কয়েক মাস আগে পারিবারিক মুদির দোকানের ব্যাবসা শুরু করেত ঋণ নেন কয়েকটি এনজিও থেকে। শুরুর দিকে ঠিক ঠাক কিস্তার টাকা পরিশোধ করলেও, কয়েক মাস যাবত কিস্তি দিতে পারছিলেন না মোহিদুল ইসলাম।

মঙ্গলবার কিস্তি আদায়ের জন্য এনজিওর দুজন মাঠকর্মী সন্ধ্যা পর্যন্ত তার বাসায় অবস্থান করায় রাতে স্ত্রীর সাথে কথা কাটাকাটি হওয়ায় আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে মহিদুল বিষাক্ত ট্যাবলেট সেবন করেন। তিনমাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বুলবুলি ও ৫ বছর বয়সী কন্যা মেঘলাকেও সেবন করান। এই ঘটনা টের পেয়ে প্রতিবেশীরা তিনজনকেই ভর্তি করেন শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ।

মেডিকেল সংলগ্ন ছিলিমপুর পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক আবদুল আজিজ মণ্ডল জানান, চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বিকেলে মহিদুলের স্ত্রী বুলবুলি মারা গেছেন। আর মহিদুল ও তার কন্যা আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে হাসপাতালে।









Leave a reply