‌’ওম্যান’ শব্দের সংজ্ঞা বদলে দিলো অক্সফোর্ড ডিকশনারি

|

‘‌ওম্যান’ ইংরেজিতে Woman শব্দটা নিয়ে বিতর্ক চলছিলো‌ বহুদিন ধরে। কারণ এই শব্দের সমার্থক শব্দ হিসেবে নাকি অক্সফোর্ড ডিকশনারিতে নারীদের নিয়ে আপত্তিকর ও অসামঞ্জস্য শব্দ আসছিলো। অবশেষে চলে আসা বিতর্কের অবসান ঘটল। মহিলা বা ‘‌ওম্যান’ (Woman)‌ শব্দটির সংজ্ঞায় ব্যবহৃত একাধিক আপত্তিকর ‌এবং অপমানজনক শব্দ ডিকশনারি থেকে সরিয়ে নিলো অক্সফোর্ড।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে প্রকাশিত ডিকশনারির সর্বশেষ সংস্করণে ‘‌ওম্যান’ শব্দটির ‌ইংরেজি প্রতিশব্দ বা সংজ্ঞা হিসেবে বলা হয়েছে, একজনের স্ত্রী, বান্ধবী কিংবা ‘Female Lover’‌। নতুন এই সংজ্ঞায় ‘‌বিচ’‌, ‘‌বিন্ট’‌, ‘‌ওয়েনচ’‌–এর মতো বেশ কিছু অপমানজনক এবং আপত্তিকর শব্দ বাদ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বাদ দেওয়া হয়েছে লিঙ্গবৈষম্যমূলক শব্দও।

অক্সফোর্ডের পক্ষ থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, ‘‘‌ডিকশনারিতে ‘‌ওম্যান’ (Woman)‌ শব্দটির সংজ্ঞায় আমরা কিছু পরিবর্তন এনেছি। বেশ সুন্দর উদাহরণ এবং শব্দ যুক্ত করা হয়েছে।’‌’‌

তবে অক্সফোর্ডের এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পেছনে ছিল মারিয়া বিট্রিস জিওভানার্দি নামে এক মহিলার অনলাইন পিটিশন। ২০১৯ সালে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিকে তাদের ডিকশনারি থেকে মহিলা বা ‘‌ওম্যান’ শব্দটির সংজ্ঞায় ব্যবহৃত অপমানজনক শব্দগুলো সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানান তিনি। মূলত ‘‌বিচ’‌, ‘‌বিন্ট’‌, ‘‌ওয়েনচ’‌–এর মতো বেশ কিছু শব্দের বিরুদ্ধেই আপত্তি জানান ওই নারী।

তিনি আরও বলেন, বাদ দিতে হবে লিঙ্গবৈষম্যমূলক শব্দও। আর এই নিয়েই দেখা দেয় বিতর্ক। গোটা বিশ্বে অনেক মহিলাই তাকে সমর্থন জানান। ৩৪ হাজারেরও বেশি মানুষ ওই অনলাইন পিটিশনে সই করেন।

সাক্ষাৎকারে জিওভানার্দি জানান, অক্সফোর্ড কর্তৃপক্ষের এমন পদক্ষেপে তিনি এখন ৮৫ শতাংশ খুশি। কারণ অনেক কাজ বাকি। সম্প্রতি পুরুষ বা ‘‌মেল’ (Male‌) ‌শব্দের সংজ্ঞাতেও একই পরিবর্তন করা হয়েছিল।‌‌

এদিকে, এই খবরে নেটিজেনদের একাংশকেও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা গেছে। অনেকেই অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply