শুভ জন্মদিন রেখা

|

শুভ জন্মদিন রেখা

ভারতীয় হিন্দী চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী রেখার জন্মদিন আজ। ১৯৬৬ সালে রাঙ্গুলা রত্নম নামে একটি তেলেগু সিনেমার মাধ্যমে শিশুশিল্পী হিসেবে তার চলচ্চিত্র জীবন শুরু হয়। কিন্তু নায়িকা হিসেবে ১৯৭০ সালে শাওন ভাদো নামে একটি সিনেমাতে অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি বলিউডে যাত্রা শুরু করেন। শুরুর দিকে খুব একটা সাফল্য না দেখলেও, সত্তরের দশকের মাঝের দিকে রেখা অভিনেত্রী হিসেবে পরিচিতি অর্জন করেন।

তামিল অভিনেতা জেমিনি গণেশন ও তেলেগু অভিনেত্রী পুষ্পাভ্যাল্লীর ঘরে ভারতের চেন্নাইয়ে (পরে মাদ্রাজ) ১৯৫৪ সালের ১০ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন রেখা। বড় হয়ে রেখা তার বাবার পদচিহ্ন অনুসরণ করেন। যদিও তিনি অর্ধেক তামিল এবং অর্ধেক তেলেগু। কিন্তু তিনি তার বাড়িতে তেলেগু ভাষাতেই কথা বলেন। এছাড়াও রেখা ইংরেজি, হিন্দি এবং উর্দু ভাষায় অনর্গল কথা বলতে পারেন।

রেখার বাবা-মা বিবাহিত ছিলেন না। শৈশবে তার বাবা তাকে স্বীকার করেননি। শৈশবেই রেখা স্কুল ছেড়ে দেন এবং অভিনেত্রী হিসেবে তার ক্যারিয়ার গড়ে তোলেন।

ক্যারিয়ারে চার দশকের বেশি সময়ে অভিনয় জীবনে রেখা ১৮০টির অধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। তিনি তিনবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৮১ সালে উমরাহ জান চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার লাভ করেন রেখা।

বলিউডে অমিতাভ-রেখা জুটি বেশ আলোচিত। এত বছর হয়ে গেছে, এত মানুষের প্রেম, পরকীয়া, বিচ্ছেদ, নতুন নতুন জুটি এসেছে বলিউডে। তবু আজও রেখা-অমিতাভের জুটি যেন একেবারেই আলাদা। কী যেন একটা রয়েই গিয়েছে দু’জনের মধ্যে। তাদের শেষ সিনেমা যশ চোপড়ার ‘সিলসিলা’। রেখার জন্মদিন ১০ অক্টোবর, ঠিক তার পরের দিন অর্থাৎ ১১ অক্টোবর জন্মদিন অমিতাভের। দু’জনের সত্যিকারের জীবনেও যেন এক অদ্ভুত ‘সিলসিলা’। রহস্যময় মিল!

১৯৮১ সালে যশ চোপড়া তার সিলসিলা সিনেমাটা অমিতাভ-জয়া-রেখার ‘সত্যিকারের’ ত্রিকোণ প্রেমের গল্প নিয়েই বানিয়েছিলেন বলে মনে করেন অনেকে। অমিতাভ-রেখার একসঙ্গে সেটাই শেষ সিনেমা। বলা হয়, ১৯৭৬ সালে ‘দো আনজানে’র শ্যুটিংয়ের সময়ে কাছাকাছি চলে আসেন অমিতাভ-রেখা। সেই থেকে জয়ার সঙ্গে অমিতাভের সম্পর্কের অবনতি শুরু হয়। এমনকি গুঞ্জন রটে, গোপনে নাকি অমিতাভকে বিয়েও করেছেন রেখা। যদিও অমিতাভ কখনওই কিছু বলেননি এই সম্পর্ক নিয়ে।









Leave a reply