নেত্রকোণায় চার দিনে পানিতে ডুবে পাঁচ শিশুর মৃত্যু

|

স্টাফ রির্পোটার, নেত্রকোণা
নেত্রকোণার কলমাকান্দায় পানিতে ডুবে মাহফুজ রহমান (৭) ও শান্ত মিয়া (৮) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তারা একে অপরের খালাতো ভাই। আজ মঙ্গলবার দুপুরে পোগলা ইউনিয়নের গুটমণ্ডল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গত চার দিনে কলমাকান্দা ও দুর্গাপুরে পানিতে ডুবে পাঁচ শিশুর মৃত্যু হয়।

শিশু মাহফুজ গুটমণ্ডল গ্রামের দুলাল মিয়া ছেলে। আর শান্ত সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর ইউনিয়নের রৌহা-আলমপুর গ্রামের মো.শাহ আলমের ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শিশু শান্ত মিয়াকে নিয়ে তার মা গত কয়েক দিন আগে কলমাকান্দার গুটমণ্ডল গ্রামের বোনের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। আজ বেলা ১২টার দিকে শান্ত ও তার খালাতো ভাই মাহফুজ বাড়ির পাশে খেলা করছিল। কিছুক্ষণ পর তাদের সারা না পেয়ে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করে। কিন্তু কোথায়ও কোন সন্ধান পায়নি। পরে দুপুর দেড়টার দিকে পাশে থাকা একটি জলাশয়ে স্থানীয়রা ওই শিশু দুটির ভাসমান দেহ দেখতে পেয়ে পরিবারের লোকজনদের খবর দেয়। পরে স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পোগলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম।

এ ব্যাপারে কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাজহারুল করিম বলেন, আবেদনের প্রেক্ষিতে পানিতে মারা যাওয়া ওই শিশু দুটির মরদেহ স্বজনদেও কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এর আগে গত শনিবার দুপুরে কলমাকান্দার চিকনহালা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে আলভিন মিয়া (৫) পানিতে ডুবে মারা যায়। ওই দিন নাজিরপুর কুট্টাকান্দা গ্রামের মিজানউল্লাহর মেয়ে মাসুমা আক্তার (৭) নদীতে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। গতকাল সোমবার পুলিশ ভাসমান অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে। গত সোমবার দুপুরে পাঁচকাঠা গ্রামে বাড়ির পাশে জলাশয়ে ডুবে মৃত আবদুর সালামের মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস (২) মারা যায়। ওই দিন দুপুরে দুর্গাপুর উপজেলার গাঁওকান্দিয়া ইউনিয়নের জাঙ্গালীয় গ্রামের কামাল উদ্দিনের বাকপ্রতিবন্ধী ছেলে এমাদুল্লাহ (৬) বাড়ির পাশে একটি জলাশয়ে ডুবে মারা যায়।









Leave a reply