মোতাহের হোসেন চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী আজ

|

মোতাহের হোসেন চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মুক্তবুদ্ধিচর্চার প্রবক্তা, উদার মানবতাবাদী ও মননশীল প্রবন্ধকার বাংলা ভাষার জনপ্রিয় প্রাবন্ধিক মোতাহের হোসেন চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৫৬ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর মারা যান তিনি। মোতাহের হোসেন চৌধুরী ১৯০৩ সালে নোয়াখালী জেলার কাঞ্চনপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

কুমিল্লা ইউসুফ হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে আইএ ও বিএ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি। ইউসুফ হাইস্কুলে শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু হয়। প্রাইভেট পরীক্ষার্থী হিসেবে বাংলায় মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন ১৯৪৩ সালে। এরপর কলকাতার ইসলামিয়া কলেজে লেকচারার পদে যোগদান করেন ১৯৪৬ সালে। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর চট্টগ্রাম কলেজে যোগদান করেন ও মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ পদেই অধিষ্ঠিত থাকেন।

মুক্তবুদ্ধিচর্চার প্রবক্তা, উদার মানবতাবাদী ও মননশীল প্রবন্ধকার হিসেবে মোতাহের হোসেন চৌধুরী অর্জন করেন বিশেষ খ্যাতি। ঢাকার মুসলিম সাহিত্য সমাজের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত ছিলেন তিনি। লেখক রচিত ‘আমাদের দৈন্য’, ‘আদেশপন্থী ও অনুপ্রেরণাপন্থী’ ও ‘মুসলমান সাহিত্যিকদের চিন্তাধারা’ প্রবন্ধ তিনটি যথাক্রমে সাহিত্য সমাজের পঞ্চম, ষষ্ঠ ও অষ্টম বার্ষিক সম্মেলনে পাঠ করা হয়।

মোতাহের হোসেনের প্রবন্ধের গদ্যশৈলীতে প্রমথ চৌধুরী এবং মননে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর’র প্রভাব লক্ষ্যণীয়। তার রচনায় সংস্কৃতি, ধর্ম, মানবতাবোধ ও মানুষের জীবনাচরণের মৌলিক বিষয়গুলি সংজ্ঞায়িত ও উন্মোচিত হওয়ার প্রয়াস দেখিয়েছে।

‘সংস্কৃতি কথা’ (১৯৫৮) তার প্রধান প্রবন্ধ গ্রন্থ। বার্ট্রান্ড রাসেলের ‘কনকোয়েস্ট অফ হ্যাপিনেস’ গ্রন্থের অনুবাদ ‘সুখ’ (১৯৬৫) তার দ্বিতীয় গ্রন্থ এবং তৃতীয় গ্রন্থ ক্লাইভ বেল-এর ‘সিভিলাইজেশন’ গ্রন্থের ভাবানুবাদ ‘সভ্যতা’ (১৯৬৫)।









Leave a reply