ধর্ষণ-খুনের হুমকিতে থানায় যেতে বাধ্য হলেন সুশান্তের বান্ধবী রিয়া

|

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ষণ ও খুনের হুমকি পেয়েছেন সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী। তা নিয়ে ইনস্টাগ্রামে আগেই সরব হয়েছিলেন তিনি। এমনকি সাইবার অপরাধ দমন শাখাসহ খোদ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকেও এ নিয়ে হস্তক্ষেপের আহ্বান জানিয়েছিলেন তিনি। তবে এবার আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নয়, একেবারে থানায় গিয়ে অভিযোগ জানালেন রিয়া।

শনিবার মুম্বইয়ের সান্তাক্রুজ থানায় গিয়ে দু’জন ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীর বিরুদ্ধে এফআইআর করেছেন রিয়া। ওই দু’জনের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ ক্ষুদে বার্তা পাঠানোসহ ধর্ষণের হুমকি দেয়ার অভিযোগ করছেন তিনি। এছাড়া, অভিযোগ দায়ের করার সময় ওই দু’জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ এবং খুনের হুমকির খুঁটিনাটি বর্ণনা দিয়েছেন রিয়া।

অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি ৫০৭ ধারাসহ আইটি অ্যাক্টের ৬৬ ধারায় তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর করেছে মুম্বই পুলিশ। ইতোমধ্যে ওই দু’জনের পরিচয় জানতে পেরেছেন তারা। শীঘ্রই অভিযুক্তদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে বলে আশা তদন্তকারী কর্মকর্তাদের।

মাসখানেক আগে সুশান্তের আত্মহত্যার পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রিয়ার বিরুদ্ধে একের পর এক বিরূপ মন্তব্য ভেসে এসেছে। সুশান্তের মৃত্যুর এক মাসের মাথায় পরিস্থিতি এমন হয়েছে যে, সরাসরি রিয়ার ওপর চাপ সৃষ্টি করে বলা হচ্ছে তাকে রেপ বা মার্ডার করে দেওয়া হবে যদি না তিনি আত্মহত্যা করেন! স্তম্ভিত রিয়া ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘আমাকে দেহব্যবসায়ী বলা হলো। আমি চুপ ছিলাম। আমাকে হত্যাকারী বলা হলো। আমি চুপ ছিলাম। কিন্তু আমার চুপ থাকার মানে এই নয় যে আমি কাউকে আমাকে ধর্ষণ বা খুন করার অধিকার দিয়েছি, মান্নু রাউত আমি আত্মহত্যা না করলে আমাকে খুন বা রেপ করা হবে এই কথা বলার অধিকার কে দিলো আপনাকে? আপনি জানেন আপনি কি বলছেন? এটা ভয়ঙ্কর অপরাধ! কারও সঙ্গেই এরকম হোক চাই না আমি!’

রিয়া তার পরবর্তী ইনস্টাগ্রামের পোস্টে রিয়া সুশান্তের একটি ছবি দিয়ে অমিত শাহের অফিসিয়াল পেজে পোস্ট করেছেন। এই পোস্টে নিজের পরিচয় দিতে গিয়ে রিয়া লিখেছেন, ‘স্যার আমি সুশান্ত সিংহ রাজপুতের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী। এক মাসের ওপর হয়ে গেল সুশান্ত চলে গেছে। আমি সরকারের প্রতি আস্থাশীল। চাই এই তদন্তের সিবিআই তদন্ত হোক। আমি শুধু জানতে চাই সুশান্তের ওপর কী এমন চাপ সৃষ্টি করা হয়েছিল যে ওকে আত্মহত্যা করতে হল!’

রিয়ার এই পোস্টেও নেটিজেনদের কেউ চুপ থাকেননি। কেউ বলেছেন ‘নাটক করছে’, কেউ বলেছে, ‘নিজেকে বাঁচাচ্ছে’ তো কেউ লিখেছেন ‘করণ জোহরকে জেলে পাঠাও’।









Leave a reply