আগামী মাসের মধ্যে করোনার টিকা আনার চেষ্টায় রাশিয়া

|

করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই এর প্রতিষেধক উদ্ভাবনের চেষ্টা করছে বিজ্ঞানীরা। তারা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন কার্যকর টিকা উদ্ভাবনে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে এরই মধ্যে বেশ কিছু সম্ভাব্য টিকা উদ্ভাবনের দাবিও করা হয়েছে। এর মধ্যে কিছু সম্ভাব্য টিকা মানুষের ওপর পরীক্ষার পর্যায়ে রয়েছে। তবে এসবের কোনোটিই সম্প্রতি আসার সম্ভাবনা নেই। তবে রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা বলেছেন, তারা আগামী মাসের মধ্যে করোনার টিকা আনার ব্যাপারে আশাবাদী। খবর দ্য মস্কো টাইমস।

সংবাদমাধ্যম দ্য মস্কো টাইমস এ রাশিয়ার বিজ্ঞানীদের বরাত দিয়ে বলা হয়, বিশ্বের প্রথম করোনাভাইরাসের টিকা আগামী মাসেই রোগীদের শরীরে প্রয়োগ করা হবে। এর আগে মস্কোর এক মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় জানায়, তারা স্বেচ্ছাসেবীদের ওপর সম্ভাব্য ওই টিকার সফল প্রয়োগ করেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওয়েবসাইটে সারা বিশ্বে টিকা তৈরির নানা উদ্যোগ নিয়ে একটি খসড়া তালিকা রয়েছে। গত সপ্তাহ পর্যন্ত এ তালিকায় ১৬০টি উদ্যোগের তথ্য ছিল। তালিকার তথ্য অনুযায়ী, ২১ টিকা মানবদেহে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পর্যায়ে পৌঁছেছে। আর ১৩৯টি প্রাক-পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়ে গেছে। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে থাকা ২১ টিকার মধ্যে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডের একটি টিকা আছে।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এ গবেষণার সঙ্গে আছে ব্রিটিশ ওষুধ কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা। তারা জানিয়েছে, আগামী অক্টোবর নাগাদ টিকা আনার ব্যাপারে তারা আশাবাদী। অক্সফোর্ডের টিকা ও চীনের সিনোভেকের টিকাটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তৃতীয় ধাপে আছে। এ পর্যায়ে অনেক বেশিসংখ্যক মানুষের ওপর টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষা হয়। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের বাকি ১৯টি টিকা প্রথম বা দ্বিতীয় ধাপে আছে। আর প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে আছে ভারতের দুটি প্রতিষ্ঠান সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া ও ইন্ডিয়ান ইমিউনলজিক্যাল লিমিটেডের টিকা।

দ্য মস্কো টাইমস-এর প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাশিয়ার সম্ভাব্য টিকাটি উদ্ভাবন করেছে রাষ্ট্র পরিচালিত গামালি ন্যাশনাল রিসার্চ সেন্টার ফর এপিডেমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি। মস্কোর দ্য সেচেনভ ফার্স্ট মস্কো স্টেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় গত জুনে ৩৮ জন স্বেচ্ছাসেবীর ওপর সম্ভাব্য ওই টিকার প্রয়োগ শুরু করে। একই সময়ে রাশিয়ার সেনাবাহিনী একই টিকার দুই মাসের পরীক্ষা চালায়।

গামালি সেন্টারের প্রধান আলেক্সান্ডার গিন্টসবার্গ রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাসকে বলেন, তিনি আশা করছেন আগামী ১২ থেকে ১৪ আগস্টের মধ্যে সম্ভাব্য টিকাটি জনসাধারণের প্রয়োগের জন্য বাজারে আনা যাবে। তবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সেপ্টেম্বর নাগাদ ব্যাপক হারে উৎপাদন শুরু করতে পারবে।





সম্পর্কিত আরও পড়ুন







Leave a reply